সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

বাইবেল নাটক তৈরি করার জন্য ২৭,৫০০ কিলোগ্রামের চেয়েও বেশি পাথরের টুকরো মাউন্ট ইবো নামে স্টুডিওতে আনা হয়

যেভাবে আপনার দান ব্যবহার করা হয়

২০২০ সালের “সর্ব্বদা আনন্দ কর”! আঞ্চলিক সম্মেলনের কার্যক্রমের জন্য ভিডিও তৈরি

২০২০ সালের “সর্ব্বদা আনন্দ কর”! আঞ্চলিক সম্মেলনের কার্যক্রমের জন্য ভিডিও তৈরি

আগস্ট ১০, ২০২০

আঞ্চলিক সম্মেলনের কার্যক্রমের ভিডিওগুলো আমাদের হৃদয় স্পর্শ করেছে এবং বাইবেলের শিক্ষাগুলো আরও ভালোভাবে বুঝতে সাহায্য করেছে। ২০২০ সালের “সর্ব্বদা আনন্দ কর”! আঞ্চলিক সম্মেলনে মোট ১১৪টা ভিডিও রয়েছে। আর ৪৩টা বক্তৃতা রয়েছে, যেগুলো পরিচালকগোষ্ঠীর সদস্য এবং তাদের সাহায্যকারীরা তুলে ধরেছিলেন। আপনি কি কখনো ভেবে দেখেছেন, এই ভিডিওগুলো তৈরি করার পিছনে কতটা পরিশ্রম এবং খরচ জড়িত রয়েছে?

বিশ্বব্যাপী প্রায় ৯০০ জন ভাই-বোন তাদের সময় এবং দক্ষতা ব্যবহার করে এই ভিডিওগুলো তৈরি করার জন্য সাহায্য করেছে। দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে তারা এই প্রজেক্টে প্রায় ১,০০,০০০ ঘণ্টা ব্যয় করেছে। এর অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, ৭৬ মিনিটের বাইবেল নাটক নহিমিয়: “সদাপ্রভুতে যে আনন্দ, তাহাই তোমাদের শক্তি,” যেটা তৈরি করতে ৭০,০০০ ঘণ্টা ব্যয় করা হয়েছে।

সত্যিই, এই আত্মত্যাগী স্বেচ্ছাসেবকদের যত্ন নেওয়ার এবং তাদের টেকনিক্যাল বিষয় ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জামগুলো আর সেইসঙ্গে অন্যান্য জিনিসপত্র প্রদান করার জন্য অনেক অর্থ খরচ করা হয়েছিল, যাতে এই কাজ ভালোভাবে সম্পাদন করা হয়।

জেরেড গসম্যান, যিনি অডিও/ভিডিও সার্ভিসেস-এ কাজ করেন, তিনি বলেন, “পরিচালকগোষ্ঠীর টিচিং (শিক্ষাদান সংক্রান্ত) কমিটি আমাদের এই ভিডিওগুলোতে বিভিন্ন সংস্কৃতি এবং জায়গা অন্তর্ভুক্ত করতে চেয়েছিল। এটার কারণ হল, আমরা বিশ্বব্যাপী ভ্রাতৃসমাজের অংশ এবং আমরা আমাদের ভিডিওগুলোর মাধ্যমে তা দেখাতে চাই। এটা সম্পাদন করার জন্য ১১টা দেশ থেকে ২৪টা টিম একসঙ্গে কাজ করেছে। এই বৃহৎ কাজ যেহেতু পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গা থেকে করা হয়েছিল, তাই এটার জন্য প্রচুর অর্থ, অনেক পরিকল্পনা এবং এটাকে ভালোভাবে দেখাশোনা করার প্রয়োজন হয়।”

এ ছাড়া, আমাদের বেশিরভাগ ভিডিও তৈরি করার জন্য বিশেষ ধরনের সরঞ্জাম এবং সেটের প্রয়োজন হয়। যেমন, নহিমিয়: “সদাপ্রভুতে যে আনন্দ, তাহাই তোমাদের শক্তি” শিরোনামের নাটকের সেট যুক্তরাষ্ট্রে নিউ ইয়র্কের প্যাটারসনের কাছে মাউন্ট ইবো নামে একটা স্টুডিওতে তৈরি করা হয়েছিল। সিনেমার দৃশ্যগুলোর মধ্যে সঠিকভাবে ঐতিহাসিক বৈশিষ্ট্য তুলে ধরার জন্য ভাইয়েরা হালকা এবং অল্প খরচে কৃত্রিম প্রাচীর তৈরি করে, যেগুলো দেখতে হুবহু প্রাচীন যিরূশালেমের প্রাচীরের মতো ছিল। আর এভাবে তারা দানগুলো সর্বোত্তমভাবে ব্যবহার করে থাকে। প্রত্যেকটা কাঠামোর মধ্যে ছয় মিটার (২০ ফুট) লম্বা কাঠের উপর এক ধরনের ফেনা আর রং ব্যবহার করা হয়েছিল, যেটা দেখতে একেবারে পাথরের মতো। এই “প্রাচীরগুলো” বিভিন্ন দৃশ্যের জন্য ব্যবহার করা হয়, যেটার ফলে অল্প কয়েকটা সেট তৈরি করাই যথেষ্ট ছিল। তা সত্ত্বেও, শুধুমাত্র নাটকের সেট তৈরি করার জন্য প্রায় ১,০০,০০০ (মার্কিন ডলার) খরচ হয়েছিল। *

এই বছরের আঞ্চলিক সম্মেলনের কার্যক্রম সম্বন্ধে এই বিস্তারিত তথ্য জানার ফলে এটার প্রতি আমাদের উপলব্ধিবোধ আরও বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা নিশ্চিত যে, এই কার্যক্রম সম্পাদন করার জন্য ভাই-বোনেরা যে-পরিশ্রম করেছে, তা সারা পৃথিবীতে যিহোবার প্রশংসা নিয়ে আসবে। পৃথিবীব্যাপী কাজের জন্য donate.jw.org এবং অন্যান্য উপায়ে উদারভাবে দেওয়া আপনাদের দানের জন্য আমরা ধন্যবাদ জানাতে চাই।

^ অনু. 5 নহিমিয়: “সদাপ্রভুতে যে আনন্দ, তাহাই তোমাদের শক্তি” শিরোনামের নাটকের সেট মহামারি করোনা ভাইরাসের আগে তৈরি করা হয়েছিল। সেই সময় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার প্রয়োজন ছিল না।