সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি দ্বিতীয় মেনুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

যিহোবার সাক্ষিরা

বাংলা

বাইবেল—এই বইয়ে কোন বার্তা রয়েছে?

 খণ্ড ২৩

সুসমাচার ছড়িয়ে পড়ে

সুসমাচার ছড়িয়ে পড়ে

পৌল স্থলে ও সমুদ্রে যাত্রা করে প্রচার অভিযান চালান

ধর্মান্তরিত হওয়ার পর, পৌল উৎসুকভাবে ঈশ্বরের রাজ্যের সুসমাচার ঘোষণা করেছিলেন—একসময়ের বিরোধী তখন নিজেই চরম বিরোধিতার মুখোমুখি হয়েছিলেন। এই অক্লান্ত প্রেরিত বেশ কয়েক বার প্রচার অভিযান চালিয়েছিলেন, সেই রাজ্যের সুসমাচার ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য দূরদূরান্তে যাত্রা করেছিলেন, যা মানবজাতির জন্য ঈশ্বরের আদি উদ্দেশ্য পরিপূর্ণ করবে।

লুস্ত্রায় তার প্রথম প্রচার অভিযানের সময় পৌল জন্ম থেকে খঞ্জ একজন ব্যক্তিকে সুস্থ করেছিলেন। জনতা চিৎকার করে বলতে শুরু করেছিল যে, পৌল এবং তার ভ্রমণসঙ্গী বার্ণবা হল দেবতা। এই দুই ব্যক্তি অনেক কষ্টেসৃষ্টে তাদের উদ্দেশে বলিদান করা থেকে লোকেদের নিবৃত্ত করতে পেরেছিল। কিন্তু, পৌলের শত্রুদের দ্বারা প্ররোচিত হয়ে সেই একই জনতা পরে তাকে পাথর মেরেছিল এবং মৃত মনে করে ফেলে রেখে গিয়েছিল। পৌল সেই আক্রমণ থেকে রক্ষা পেয়েছিলেন এবং পরে একসময়ে উৎসাহজনক বাক্যের দ্বারা শিষ্যদের শক্তিশালী করার জন্য সেই নগরে ফিরে গিয়েছিলেন।

কিছু যিহুদি খ্রিস্টান তর্কবিতর্ক করেছিল যে, ন-যিহুদি বিশ্বাসীদের মোশির ব্যবস্থার কিছু অংশ অবশ্যই মানতে হবে। পৌল যিরূশালেমে প্রেরিতদের ও প্রাচীনবর্গের কাছে প্রশ্নটা উপস্থাপন করেছিলেন। সতর্কতার সঙ্গে শাস্ত্র বিবেচনা করার পর ও ঈশ্বরের পবিত্র আত্মার সাহায্যে সেই পুরুষেরা মণ্ডলীর কাছে চিঠি লিখেছিল এবং তাদেরকে প্রতিমাপূজা, রক্ত ও রক্ত না ঝরানো মাংস খাওয়া এবং ব্যভিচার থেকে পৃথক থাকতে বলেছিল। এই ধরনের আজ্ঞাগুলো ছিল “প্রয়োজনীয় বিষয়” কিন্তু এগুলোতে মনোযোগ দেওয়ার জন্য মোশির ব্যবস্থা পালন করা আবশ্যক ছিল না।প্রেরিত ১৫:২৮, ২৯.

প্রচারের জন্য তার দ্বিতীয় ভ্রমণের সময় পৌল বিরয়ায় অর্থাৎ আধুনিক দিনের গ্রিসে পরিদর্শন করেছিলেন। সেখানে বসবাসরত যিহুদিরা আগ্রহপূর্বক বাক্য গ্রহণ করেছিল, তার শিক্ষার সত্যতা যাচাই করার জন্য প্রতিদিন শাস্ত্র পরীক্ষা করেছিল। আবারও, বিরোধিতা তাকে স্থান পরিবর্তন করতে বাধ্য করেছিল আর এবার আথীনীতে। আথীনীর একদল সুশিক্ষিত লোকের সামনে পৌল এক জোরালো বক্তৃতা দিয়েছিলেন, যা কৌশলতা, বিচক্ষণতা ও বাক্‌পটুতা ব্যবহার করার এক চমৎকার উদাহরণ।

প্রচারের জন্য তৃতীয় বার যাত্রা করার পর, পৌল যিরূশালেমে গিয়েছিলেন। তিনি যখন সেখানে মন্দির পরিদর্শন করেছিলেন, তখন কিছু যিহুদি দাঙ্গা শুরু করেছিল, তাকে হত্যা করতে চেয়েছিল। রোমীয় সৈন্যরা তাতে হস্তক্ষেপ করেছিল এবং পৌলকে জেরা করেছিল। একজন রোমীয় নাগরিক হিসেবে তিনি পরে রোমীয় দেশাধ্যক্ষ ফীলিক্সের সামনে আত্মপক্ষ সমর্থন করেছিলেন। সেই যিহুদিরা পৌলের বিরুদ্ধে যে-অভিযোগগুলো এনেছিল, সেগুলোর পক্ষে কোনো প্রমাণই উপস্থাপন করতে পারেনি। তাকে যিহুদিদের হাতে সমর্পণ করার বিষয়টা এড়ানোর জন্য পৌল আরেকজন দেশাধ্যক্ষ ফীষ্টকে বলেছিলেন: “আমি কৈসরের নিকটে আপীল করি।” ফীষ্ট উত্তর দিয়েছিলেন: “কৈসরের কাছেই যাইবে।”—প্রেরিত ২৫:১১, ১২.

এরপর পৌলের বিচার করার জন্য তাকে জাহাজে করে ইতালিয়াতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। সমুদ্রযাত্রার সময় জাহাজডুবি হয়েছিল ও শীতকালের কারণে তাকে মিলিতা দ্বীপে থাকতে হয়েছিল। অবশেষে তিনি যখন রোমে পৌঁছেছিলেন, তখন তিনি দু-বছর ভাড়া করা বাড়িতে থেকেছিলেন। যদিও তিনি সৈনিকের প্রহরাধীন ছিলেন কিন্তু এই উদ্যোগী প্রেরিত, যারা তার সঙ্গে দেখা করতে আসত, তাদের সকলের কাছে ঈশ্বরের রাজ্য সম্বন্ধে প্রচার করে চলেছিলেন।

প্রেরিত ১১:২২–২৮:৩১ পদের ওপর ভিত্তি করে।