সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি দ্বিতীয় মেনুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

যিহোবার সাক্ষিরা

বাংলা

বাইবেল—এই বইয়ে কোন বার্তা রয়েছে?

 খণ্ড ২৬

পরমদেশ পুনরুদ্ধার করা হয়!

পরমদেশ পুনরুদ্ধার করা হয়!

খ্রিস্টের শাসনাধীন রাজ্যের মাধ্যমে যিহোবা তাঁর নামকে পবিত্রীকৃত করেন, তাঁর সার্বভৌমত্বের সত্যতা প্রতিপাদন করেন এবং সমস্ত দুষ্টতা দূর করেন

প্রকাশিত বাক্য বা অ্যাপোক্যালিপস্‌ বলে অভিহিত বাইবেলের শেষ বইটি সমস্ত মানবজাতিকে আশা প্রদান করে। প্রেরিত যোহনের দ্বারা লিপিবদ্ধ এই বইটির মধ্যে বিভিন্ন দর্শন রয়েছে, যেগুলো যিহোবার উদ্দেশ্যের পরিপূর্ণতার চূড়ান্ত পর্যায়।

প্রথম দর্শনে, পুনরুত্থিত যিশু বেশ কিছু মণ্ডলীকে প্রশংসা ও সংশোধন করেন। পরের দর্শনটি আমাদেরকে ঈশ্বরের স্বর্গীয় সিংহাসনের সামনে নিয়ে যায়, যেখানে আত্মিক প্রাণীরা তাঁর প্রশংসা করছে।

ঈশ্বরের উদ্দেশ্য এগিয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে, মেষশাবক যিশু খ্রিস্ট সপ্ত মুদ্রায় মুদ্রাঙ্কিত একটি পুস্তক লাভ করেন। প্রথম চারটে মুদ্রা খোলা হলে, জগতের দৃশ্যপটে রূপক অশ্বারোহীদের দেখা যায়। প্রথম জন হলেন শুক্লবর্ণ অশ্বের ওপর আরোহিত ও রাজা হিসেবে মুকুটে ভূষিত যিশু। এরপর বিভিন্ন রঙের অশ্বের ওপর আরোহিত অশ্বারোহীরা আসে, যারা ভবিষ্যদ্‌বাণীমূলকভাবে যুদ্ধ, দুর্ভিক্ষ ও মহামারীকে প্রতিনিধিত্ব করে, যেগুলোর সমস্তই এই বিধিব্যবস্থার শেষকালে ঘটে। সপ্তম মুদ্রা খোলার ফলে সপ্ত তূরী বাজানো হয়, যা ঈশ্বরের বিচারের ঘোষণাকে নির্দেশ করে। এগুলোর ফলে সাতটা রূপক আঘাত বা ঈশ্বরের ক্রোধের অভিব্যক্তি প্রকাশিত হয়।

স্বর্গে ঈশ্বরের রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হয়, যেটাকে নবজাত পুত্রসন্তান হিসেবে চিত্রিত করা হয়েছে। যুদ্ধ শুরু হয় এবং শয়তান ও তার মন্দদূতদের পৃথিবীতে নিক্ষেপ করা হয়। ‘পৃথিবীর সন্তাপ হইবে,’ একটা উচ্চকণ্ঠ বলে ওঠে। দিয়াবল অতিশয় রাগান্বিত, সে জানে তার সময় সংক্ষিপ্ত।—প্রকাশিত বাক্য ১২:১২.

যোহন স্বর্গে মেষশাবক হিসেবে প্রতিনিধিত্বকারী যিশুকে দেখতে পান আর তাঁর সঙ্গে মানবজাতির মধ্যে থেকে বাছাইকৃত ১,৪৪,০০০ জন ব্যক্তি রয়েছে। এই ব্যক্তিরা যিশুর “সঙ্গে রাজত্ব করিবে।” এভাবে প্রকাশিত বাক্য প্রকাশ করে যে, বংশের গৌণ সদস্যদের মোট সংখ্যা হবে ১,৪৪,০০০ জন।—প্রকাশিত বাক্য ১৪:১; ২০:৬.

পৃথিবীর শাসকরা ‘সর্ব্বশক্তিমান্‌ ঈশ্বরের সেই মহাদিনের যুদ্ধ’ আরমাগিদোনে একত্র হয়। তারা শুক্লবর্ণ অশ্বের ওপর আরোহিত ব্যক্তির—স্বর্গীয় সেনাবাহিনীকে নেতৃত্ব দানকারী যিশুর—সঙ্গে যুদ্ধ করে। এই জগতের সমস্ত শাসককে ধ্বংস করা হয়। শয়তানকে বদ্ধ করা হয় এবং যিশু ও ১,৪৪,০০০ জন ব্যক্তি পৃথিবীর ওপর “সহস্র বৎসর” রাজত্ব করে। সহস্র বছরের রাজত্বের শেষে, শয়তানকে ধ্বংস করা হয়।—প্রকাশিত বাক্য ১৬:১৪; ২০:৪.

খ্রিস্ট ও তাঁর সহশাসকদের হাজার বছরের রাজত্ব বাধ্য মানুষদের জন্য কী অর্থ রাখবে? যোহন লেখেন: “[ঈশ্বর] তাহাদের সমস্ত নেত্রজল মুছাইয়া দিবেন; এবং মৃত্যু আর হইবে না; শোক বা আর্ত্তনাদ বা ব্যথাও আর হইবে না; কারণ প্রথম বিষয় সকল লুপ্ত হইল।” (প্রকাশিত বাক্য ২১:৪) পৃথিবী এক পরমদেশ হয়ে ওঠে!

প্রকাশিত বাক্য বইটি এভাবে বাইবেলের বার্তাকে সম্পূর্ণ করে। মশীহ রাজ্যের মাধ্যমে চিরকালের জন্য যিহোবার নাম পবিত্রীকৃত ও তাঁর সার্বভৌমত্বের সত্যতা সম্পূর্ণরূপে প্রতিপাদিত হয়!

প্রকাশিত বাক্য বইয়ের ওপর ভিত্তি করে।

আরও জানুন

বাইবেল প্রকৃতপক্ষে কী শিক্ষা দেয়?

ঈশ্বরের রাজ্য কী?

অনেকে প্রভুর প্রার্থনা জানে। “তোমার রাজ্য আইসুক,” এই কথার অর্থ কী?