কে আসলে এই জগৎকে শাসন করছে?

ঈশ্বর যদি এই জগৎকে শাসন করতেন, তাহলে কি এত দুঃখকষ্ট থাকত?

অনেকে মনে করে সত্য ঈশ্বর এই জগৎকে শাসন করছেন। কিন্তু যদি তা-ই হয়, তাহলে পৃথিবীতে কি এত দুঃখকষ্ট থাকত? (দ্বিতীয় বিবরণ ৩২:৪, ৫) বাইবেল বলে যে, পৃথিবী একজন মন্দ শাসকের অধীনে রয়েছে।—পড়ুন, ১ যোহন ৫:১৯.

কীভাবে এই মন্দ শাসক মানবজাতির ওপর শাসন করতে শুরু করেছিল? মানবইতিহাসের একেবারে শুরুতে একজন স্বর্গদূত ঈশ্বরের বিরোধিতা করেছিল আর সেইসঙ্গে প্রথম মানবদম্পতিকেও বিরোধিতা করার জন্য প্ররোচিত করেছিল। (আদিপুস্তক ৩:১-৬) সেই দম্পতি এই বিদ্রোহী দূত অর্থাৎ শয়তানের পক্ষসমর্থন করা বেছে নিয়েছিল আর এভাবে তারা শয়তানকে নিজেদের শাসক হিসাবে মেনে নিয়েছিল। সর্বশক্তিমান ঈশ্বরই হলেন একমাত্র ন্যায্য শাসক কিন্তু তিনি চান যেন লোকেরা ভালোবেসে তাঁর শাসনব্যবস্থা মেনে নেয়। (দ্বিতীয় বিবরণ ৬:৬; ৩০:১৬, ১৯) এটা খুবই দুঃখজনক যে, বেশিরভাগ লোক ভ্রান্ত হয়ে সেই প্রথম দম্পতির মতোই ভুল পথ বেছে নিয়েছে।—পড়ুন, প্রকাশিত বাক্য ১২:৯.

কে মানুষের সমস্যাগুলোর সমাধান করবে?

ঈশ্বর কি শয়তানকে তার মন্দ শাসন চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দেবেন? কখনোই না! এর পরিবর্তে, শয়তানের এই মন্দ কাজগুলো দূর করার জন্য ঈশ্বর যিশুকে ব্যবহার করবেন।—পড়ুন, ১ যোহন ৩:৮.

ঈশ্বরের কাছ থেকে ক্ষমতা লাভ করে, যিশু শয়তানকে ধবংস করবেন। (রোমীয় ১৬:২০) অবশেষে, ঈশ্বর মানবজাতির ওপর শাসন করবেন এবং তাঁর আদি উদ্দেশ্য অনুযায়ী মানুষের জন্য সুখ ও শান্তি নিয়ে আসবেন।—পড়ুন, প্রকাশিত বাক্য ২১:৩-৫. (w১৪-E ০৫/০১)