সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি দ্বিতীয় মেনুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

যিহোবার সাক্ষিরা

বাংলা

প্রহরীদুর্গ  |  এপ্রিল ২০১৪

পুনরুত্থান—মৃতদের জন্য এক আশা

পুনরুত্থান—মৃতদের জন্য এক আশা

আপনি কি পুনরুত্থান সম্বন্ধে বাইবেলের প্রতিজ্ঞায় বিশ্বাস করেন? * যে-প্রিয়জনেরা মারা গিয়েছে, তাদের সঙ্গে পুনরায় মিলিত হওয়ার প্রত্যাশা আমাদের হৃদয়কে নাড়া দেয় আর এটা একটুও বাড়িয়ে বলা নয়। কিন্তু, এই ধরনের এক আশা পোষণ করা কি বাস্তবসম্মত? খুব ভালো হবে, আমরা যদি এর উত্তর পাওয়ার জন্য যিশু খ্রিস্টের প্রেরিতদের উদাহরণ বিবেচনা করি।

প্রেরিতরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করত যে, মৃতেরা পুনরুত্থিত হবে। কেন? অন্ততপক্ষে দুটো কারণে। প্রথমত, তাদের আশা মূলত এই বিষয়ের ওপর ভিত্তি করে ছিল: স্বয়ং যিশু মৃত্যু থেকে উত্থাপিত হয়েছেন। প্রেরিতরা আর সেইসঙ্গে ‘একেবারে পাঁচ শতের অধিক ভ্রাতা’ পুনরুত্থিত যিশুকে দেখেছিল। (১ করিন্থীয় ১৫:৬) এ ছাড়া, চারটে সুসমাচার বই দেখায় যে, যিশুর পুনরুত্থানের ঘটনাটা ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছিল এবং অনেকেই তা সত্য বলে মেনে নিয়েছিল।—মথি ২৭:৬২–২৮:২০; মার্ক ১৬:১-৮; লূক ২৪:১-৫৩; যোহন ২০:১–২১:২৫.

দ্বিতীয়ত, প্রেরিতরা দেখেছিল যে, যিশু অন্ততপক্ষে তিন জনকে পুনরুত্থিত করেছিলেন—প্রথমে নায়িন নগরে, এরপর কফরনাহূমে এবং শেষে বৈথনিয়াতে। (লূক ৭:১১-১৭; ৮:৪৯-৫৬; যোহন ১১:১-৪৪) বৈথনিয়াতে পুনরুত্থানের এই ঘটনাটি সম্বন্ধে আগের প্রবন্ধে বর্ণনা করা হয়েছে আর এটা এমন এক পরিবারে ঘটেছিল, যে-পরিবার যিশুর ঘনিষ্ট ছিল। আসুন আমরা দেখি যে, এরপর কী ঘটেছিল।

“আমিই পুনরুত্থান”

“তোমার ভাই আবার উঠিবে।” যিশু মার্থাকে এই কথাগুলো বলেছিলেন, যার ভাই লাসার চার দিন আগে মারা গিয়েছেন। মার্থা প্রথমে যিশুর কথাগুলোর অর্থ বুঝতে পারেননি। তিনি বলেছিলেন, “আমি জানি, শেষ দিনে পুনরুত্থানে সে উঠিবে,” কিন্তু তিনি মনে করেছিলেন যে, এটা ভবিষ্যতে কোনো একটা সময়ে হবে। “আমিই পুনরুত্থান ও জীবন,” যিশু এই কথাগুলো বলার পর যখন মার্থার ভাইকে মৃত্যু থেকে উত্থাপন করেছিলেন, তখন মার্থা কতটা অবাক হয়েছিলেন, তা কল্পনা করুন!—যোহন ১১:২৩-২৫.

লাসার তার মৃত্যুর পর, চার দিন ধরে কোথায় ছিলেন? লাসার এমন কিছুই বলেননি যেটা ইঙ্গিত দেয় যে, তিনি সেই চার দিন অন্য কোথাও বেঁচে ছিলেন। না, লাসারের মধ্যে অমর আত্মা বলে কিছু ছিল না, যেটা স্বর্গে গিয়েছিল। লাসারকে পুনরুত্থিত করার দ্বারা, যিশু তাকে ঈশ্বরের কাছে অবস্থিত একটা জায়গায় স্বর্গীয় সুখ ভোগ করা থেকে টেনে পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনেননি। তাহলে সেই চার দিন লাসার কোথায় ছিলেন? আসলে, তিনি কবরে ঘুমিয়ে ছিলেন।—উপদেশক ৯:৫, ১০.

মনে করে দেখুন, যিশু মৃত্যুকে ঘুমের সঙ্গে তুলনা করেছিলেন, যেটা থেকে একজন মানুষ পুনরুত্থানের মাধ্যমে জেগে উঠবে। বিবরণ বলে: “আমাদের বন্ধু লাসার নিদ্রা গিয়াছে, কিন্তু আমি নিদ্রা হইতে তাহাকে জাগাইতে যাইতেছি। তখন শিষ্যেরা তাঁহাকে কহিলেন, প্রভু, সে যদি নিদ্রা গিয়া থাকে, তবে রক্ষা পাইবে। যীশু তাঁহার মৃত্যুর  বিষয় বলিয়াছিলেন, কিন্তু তাঁহারা মনে করিলেন যে, তিনি নিদ্রাঘটিত বিশ্রামের কথা বলিতেছেন। অতএব যীশু তখন স্পষ্টরূপে তাঁহাদিগকে কহিলেন, লাসার মরিয়াছে।” (যোহন ১১:১১-১৪) লাসারকে পুনরুত্থিত করার মাধ্যমে, যিশু তাকে তার জীবন ফিরিয়ে দিয়েছিলেন এবং এর ফলে তিনি তার পরিবারের সঙ্গে আবারও মিলিত হয়েছিলেন। সেই পরিবারকে যিশু কী এক চমৎকার উপহারই-না দিয়েছিলেন!

পৃথিবীতে থাকাকালীন যিশু যে-পুনরুত্থানগুলো সম্পাদন করেছিলেন, সেগুলো ঈশ্বরের রাজ্যের রাজা হিসেবে ভবিষ্যতে তিনি যা করবেন, সেটার এক পূর্বাভাস ছিল। * পৃথিবীতে তাঁর শাসনকালে, স্বর্গীয় যিশু সেই সমস্ত মানুষের জীবন ফিরিয়ে দেবেন, যারা কবরে ঘুমিয়ে আছে। সেই কারণেই তিনি বলেছিলেন: “আমিই পুনরুত্থান।” আপনার সেই আনন্দের কথা একবার চিন্তা করুন, যখন আপনি আপনার প্রিয়জনদের আবারও দেখতে পাবেন! সেইসঙ্গে পুনরুত্থিত ব্যক্তিদের আনন্দের কথাও চিন্তা করুন!—লূক ৮:৫৬.

আপনার সেই আনন্দের কথা একবার চিন্তা করুন, যখন আপনি আপনার প্রিয়জনদেরকে আবারও দেখতে পাবেন!

অনন্তজীবন পাওয়ার জন্য বিশ্বাসের প্রয়োজন

যিশু মার্থাকে বলেছিলেন: “যে আমাতে বিশ্বাস করে, সে মরিলেও জীবিত থাকিবে; আর যে কেহ জীবিত আছে, এবং আমাতে বিশ্বাস করে, সে কখনও মরিবে না।” (যোহন ১১:২৫, ২৬) তাঁর হাজার বছরের রাজত্বের সময়ে যিশু যাদেরকে পুনরুত্থিত করবেন, তাদের চিরকাল বেঁচে থাকার প্রত্যাশা থাকবে—যতদিন তারা সত্যি সত্যিই তাঁর ওপর বিশ্বাস রাখবে।

“যে আমাতে বিশ্বাস করে, সে মরিলেও জীবিত থাকিবে।” —যোহন ১১:২৫

পুনরুত্থান সম্বন্ধে এই উল্লেখযোগ্য কথাগুলো বলার পর, যিশু মার্থাকে আত্মপরীক্ষামূলক একটা প্রশ্ন জিজ্ঞেস করেছিলেন: “ইহা কি বিশ্বাস কর? তিনি কহিলেন, হাঁ, প্রভু, আমি বিশ্বাস করিয়াছি . . . আপনি সেই খ্রীষ্ট, ঈশ্বরের পুত্ত্র।” (যোহন ১১:২৬, ২৭) আপনার সম্বন্ধে কী বলা যায়—আপনিও কি মার্থার মতোই, পুনরুত্থানের আশার বিষয়ে একই রকমের বিশ্বাস গড়ে তুলতে চান? প্রথম পদক্ষেপ হল, মানবজাতির জন্য ঈশ্বরের উদ্দেশ্যের বিষয়ে জ্ঞান নেওয়া। (যোহন ১৭:৩; ১ তীমথিয় ২:৪) এই ধরনের জ্ঞানই সেই বিশ্বাস গড়ে তুলতে পারে। এই বিষয়ে বাইবেল যা শিক্ষা দেয়, তা আপনাকে দেখানোর জন্য যিহোবার সাক্ষিদের জিজ্ঞেস করুন না কেন? তারা আপনার সঙ্গে পুনরুত্থান সম্বন্ধে চমৎকার আশার বিষয়ে আলোচনা করতে পেরে আনন্দিত হবে। ▪ (w14-E 01/01)

^ অনু. 2 এই সংখ্যার ৬ পৃষ্ঠায় “মৃত্যুই সমস্ত কিছুর শেষ নয়!” শিরোনামক প্রবন্ধটি দেখুন।

^ অনু. 9 ভবিষ্যতে পুনরুত্থানের বিষয়ে বাইবেলের প্রতিজ্ঞা সম্বন্ধে আরও তথ্যের জন্য যিহোবার সাক্ষিদের দ্বারা প্রকাশিত বাইবেল প্রকৃতপক্ষে কী শিক্ষা দেয়? বইয়ের ৭ অধ্যায় দেখুন। এই বইটি www.jw.org ওয়েবসাইটেও পাওয়া যাচ্ছে।