সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি দ্বিতীয় মেনুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

যিহোবার সাক্ষিরা

বাংলা

প্রহরীদুর্গ (অধ্যয়ন সংস্করণ)  |  নভেম্বর ২০১৫

যিহোবার উদারতার প্রতি উপলব্ধি দেখান

যিহোবার উদারতার প্রতি উপলব্ধি দেখান

যিহোবা হলেন উদার ঈশ্বর। (যাকোব ১:১৭) অন্ধকার রাতে তারকাখচিত আকাশমণ্ডল থেকে শুরু করে সবুজ ঘাসের চাদর বিছানো পৃথিবী, যিহোবার সমস্ত সৃষ্টি তাঁর উদারতার প্রশংসা করে।—গীত. ৬৫:১২, ১৩; ১৪৭:৭, ৮; ১৪৮:৩, ৪.

নিজের সৃষ্টিকর্তার প্রতি গীতরচকের এতটাই উপলব্ধি ছিল যে, তিনি যিহোবার কাজের প্রশংসা করে একটা গীত রচনা করেছিলেন। গীতসংহিতা ১০৪ গীত পড়ুন এবং আপনিও তার মতো অনুভব করেন কি না, তা পরীক্ষা করে দেখুন। গীতরচক বলেছিলেন: “আমি যাবজ্জীবন সদাপ্রভুর উদ্দেশে গান করিব; আমি যতকাল বাঁচিয়া থাকি, আমার ঈশ্বরের প্রশংসা গান করিব।” (গীত. ১০৪:৩৩) আপনিও কি একই বিষয় করতে চান?

উদারতার সর্বশ্রেষ্ঠ উদাহরণ

যিহোবা চান যেন আমরা তাঁর উদারতার উদাহরণ অনুসরণ করি। আর কেন আমাদের দানশীল বা উদার হতে হবে, সেটার যুক্তিযুক্ত কারণ সম্বন্ধেও তিনি আমাদের জানান। প্রেরিত পৌলকে তিনি যা লিখতে অনুপ্রাণিত করেছিলেন, তা লক্ষ করুন: “যাহারা এই যুগে ধনবান্‌, তাহাদিগকে এই আজ্ঞা দেও, যেন তাহারা গর্ব্বিতমনা না হয়, এবং ধনের অস্থিরতার উপরে নয়, কিন্তু যিনি ধনবানের ন্যায় সকলই আমাদের ভোগার্থে যোগাইয়া দেন, সেই ঈশ্বরেরই উপরে প্রত্যাশা রাখে; যেন পরের উপকার করে, সৎক্রিয়ারূপ ধনে ধনবান্‌ হয়, দানশীল হয়, সহভাগীকরণে তৎপর হয়; এইরূপে তাহারা আপনাদের নিমিত্ত ভাবীকালের জন্য উত্তম ভিত্তিমূলস্বরূপ নিধি প্রস্তুত করুক, যেন, যাহা প্রকৃতরূপে জীবন, তাহাই ধরিয়া রাখিতে পারে।”—১ তীম. ৬:১৭-১৯.

পৌল যখন ঈশ্বরের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে করিন্থ মণ্ডলীর উদ্দেশে দ্বিতীয় পত্র লিখেছিলেন, তখন তিনি দান করার প্রতি উপযুক্ত মনোভাব বজায় রাখার প্রতি জোর দিয়েছিলেন। পৌল বলেছিলেন, “প্রত্যেক ব্যক্তি আপন আপন হৃদয়ে যেরূপ সঙ্কল্প করিয়াছে, তদনুসারে দান করুক, মনোদুঃখপূর্ব্বক কিম্বা আবশ্যক বলিয়া না দিউক; কেননা ঈশ্বর হৃষ্টচিত্ত দাতাকে ভাল বাসেন।” (২ করি. ৯:৭) এরপর, পৌল সেই ব্যক্তিদের সম্বন্ধে উল্লেখ করেছিলেন, যারা উদার দান থেকে উপকৃত হয়: গ্রহণকারীদের চাহিদা পরিতৃপ্ত হয়; আর দাতারা আধ্যাত্মিক আশীর্বাদ লাভ করে সমৃদ্ধ হয়।—২ করি. ৯:১১-১৪.

পৌল ঈশ্বরের উদারতার নিশ্চিত প্রমাণের বিষয় উল্লেখ করে তার চিঠির এই অধ্যায় শেষ করেছিলেন। পৌল লিখেছিলেন, “ঈশ্বরের বর্ণনাতীত দানের নিমিত্ত তাঁহার ধন্যবাদ হউক।” (২ করি. ৯:১৫) ঈশ্বর তাঁর লোকেদের জন্য যিশু খ্রিস্টের মাধ্যমে যে-সমস্ত মঙ্গলজনক কাজ করেছেন, সেইসমস্তই ঈশ্বরের দানের অন্তর্ভুক্ত। এই দান এতটাই বিশাল, যা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।

যিহোবা ও তাঁর পুত্র আমাদের জন্য যা-কিছু করেছেন এবং ভবিষ্যতে যা করবেন, সেইসমস্ত কিছুর জন্য আমরা কীভাবে উপলব্ধি প্রকাশ করতে পারি? তা করার একটা উপায় হল, যিহোবার বিশুদ্ধ উপাসনা এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আমাদের সময়, শক্তি ও ধনসম্পদ ব্যবহার করা আর সেটার পরিমাণ অল্প কিংবা বেশি যা-ই হোক না কেন।

^ অনু. 11 ভারতে এটা “ভারতের যিহোবার সাক্ষিদের” প্রতি প্রদানযোগ্য হিসেবে পাঠানো উচিত।

^ অনু. 13 যে-সমস্ত ব্যক্তিদের ভারতীয় পাসপোর্ট রয়েছে, তারা www.jwindiagift.org এই ওয়েবসাইট ব্যবহার করতে পারেন।

^ অনু. 18 চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে, দয়া করে স্থানীয় শাখা অফিসের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

^ অনু. 26 ভারতে, “তুমি সদাপ্রভুর সম্মান কর আপনার ধনে” নামক নথিটা ইংরেজি, হিন্দি, কান্নাড়া, মালায়ালাম, তামিল এবং তেলুগু ভাষায় পাওয়া যাচ্ছে।