সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি দ্বিতীয় মেনুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

যিহোবার সাক্ষিরা

বাংলা

প্রহরীদুর্গ (অধ্যয়ন সংস্করণ)  |  অক্টোবর ২০১৫

আপনার জীবনে আপনি কি ঈশ্বরের হস্ত দেখতে পান?

আপনার জীবনে আপনি কি ঈশ্বরের হস্ত দেখতে পান?

“সদাপ্রভুর হস্ত আপন দাসদের পক্ষে আত্মপরিচয় দিবে।”—যিশা. ৬৬:১৪.

গান সংখ্যা: ৩২, ২৬

১, ২. কেউ কেউ ঈশ্বর সম্বন্ধে কী মনে করে?

অনেক লোক এমনটা মনে করে, তারা কী করে, তাতে ঈশ্বরের কিছু যায়-আসে না। তারা মনে করে, তাদের প্রতি কী ঘটছে সেই বিষয়ে আসলে ঈশ্বরের কোনো চিন্তাই নেই। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসে এক প্রচণ্ড ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে যখন ফিলিপিনসের বিশাল এলাকা ধ্বংস হয়েছিল, তখন সেখানকার একটা বিরাট শহরের মেয়র বলেছিলেন: “ঈশ্বর নিশ্চয়ই অন্য কোথাও ছিলেন।”

আবার অন্যেরা মনে করে, তারা কী করছে, তা ঈশ্বর দেখতে পান না। (যিশা. ২৬:১০, ১১; ৩ যোহন ১১) প্রেরিত পৌলের সময়ে কেউ কেউ একইরকম চিন্তা করেছিল। তাদের সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন: “তাহারা ঈশ্বরকে আপনাদের জ্ঞানে ধারণ করিতে সম্মত হয় নাই।” তারা ছিল অধার্মিক, দুষ্ট, লোভী ও হিংসাতে পরিপূর্ণ।—রোমীয় ১:২৮, ২৯.

৩. (ক) নিজেদেরকে আমাদের কোন প্রশ্নগুলো জিজ্ঞেস করা উচিত? (খ) বাইবেলে উল্লেখিত ঈশ্বরের “হস্ত” শব্দটা প্রায় সময়ই কোন বিষয়টাকে নির্দেশ করে?

আমাদের সম্বন্ধে কী বলা যায়? আমরা জানি, আমরা যা-কিছু করি না কেন, যিহোবা তা দেখতে পান। কিন্তু, আমাদের ব্যাপারে যিহোবা যে আগ্রহী, তা কি আমরা বিশ্বাস করি? আমরা কি আমাদের জীবনে তাঁর সাহায্যকারী হস্ত দেখতে পাই? বাইবেলে উল্লেখিত ঈশ্বরের “হস্ত” শব্দটা প্রায় সময়ই তাঁর ব্যবহৃত শক্তিকে নির্দেশ করে। তিনি তাঁর দাসদের সাহায্য করার এবং শত্রুদের পরাস্ত করার জন্য তাঁর শক্তি ব্যবহার করেন।  (পড়ুন, দ্বিতীয় বিবরণ ২৬:৮.) যিশু বলেছিলেন, কেউ কেউ “ঈশ্বরের দর্শন পাইবে [“ঈশ্বরকে দেখতে পাবে,” বাংলা কমন ল্যাঙ্গুয়েজ ভারশন]।” (মথি ৫:৮) আমরা কি সেই লোকেদের মধ্যে রয়েছি? কীভাবে আমরা “ঈশ্বরকে দেখতে” পারি? বাইবেলে এমন ব্যক্তিদের উদাহরণ রয়েছে, যারা তাদের জীবনে ঈশ্বরের হস্ত দেখেছিল আর সেইসঙ্গে এমন ব্যক্তিদের উদাহরণও রয়েছে, যারা তাদের জীবনে ঈশ্বরের হস্ত দেখতে চায়নি। আসুন আমরা এখন তাদের উদাহরণ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করি। আর আমরা এটাও শিখব, কীভাবে বিশ্বাস ঈশ্বরের হস্ত দেখার ক্ষেত্রে আমাদের সাহায্য করে।

তারা ঈশ্বরের হস্ত দেখতে চায়নি

৪. কেন ইস্রায়েলের শত্রুরা ঈশ্বরের হস্ত দেখতে চায়নি?

অতীতে, ঈশ্বর ইস্রায়েলীয়দের কীভাবে সাহায্য করেছেন, সেই বিষয়ে অনেকে দেখার ও শোনার সুযোগ পেয়েছিল। যিহোবা তাঁর লোকেদের মিশর থেকে মুক্ত করার জন্য এবং প্রতিজ্ঞাত দেশের অনেক রাজাকে পরাস্ত করার জন্য অলৌকিক কাজ করেছিলেন। (যিহো. ৯:৩, ৯, ১০) যিহোবা কীভাবে তাঁর লোকেদের রক্ষা করেছেন, সেই বিষয়ে যদিও অন্য রাজারা শুনেছিলেন এবং দেখেছিলেন, কিন্তু তারা ‘একযোগে যিহোশূয়ের ও ইস্রায়েলের সহিত যুদ্ধ করণার্থে একত্র হইয়াছিলেন।’ (যিহো. ৯:১, ২) সেই রাজারা যখন ইস্রায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলেন, তখন তাদের ঈশ্বরের হস্ত দেখার সুযোগ হয়েছিল। যিহোবার অসীম শক্তির কারণে ‘সূর্য্য স্থগিত হইয়াছিল, ও চন্দ্র স্থির থাকিয়াছিল, যাবৎ সেই জাতি শত্রুদিগের প্রতিশোধ না লইল।’ (যিহো. ১০:১৩) কিন্তু, ইস্রায়েলের সঙ্গে যুদ্ধ করার জন্য ইস্রায়েলের শত্রুরা নিজেদের ‘হৃদয় কঠিন’ করেছিল আর যিহোবা সেই অবস্থা থাকতে দিয়েছিলেন। (যিহো. ১১:২০) ইস্রায়েলের শত্রুরা পরাস্ত হয়েছিল কারণ তারা এটা স্বীকার করতে চায়নি, যিহোবা তাঁর লোকেদের পক্ষে যুদ্ধ করছেন।

৫. দুষ্ট রাজা আহাব কোন বিষয়টা বিশ্বাস করতে চাননি?

পরবর্তী সময়ে, দুষ্ট রাজা আহাব কয়েক বার ঈশ্বরের হস্ত দেখার সুযোগ পেয়েছিলেন। এলিয় তাকে বলেছিলেন: “শিশির কি বৃষ্টি পড়িবে না; কেবল আমার কথানুসারে পড়িবে।” (১ রাজা. ১৭:১) একমাত্র ঈশ্বরের হস্তের কারণেই তা সম্ভবপর হয়েছিল, কিন্তু আহাব তা বিশ্বাস করেননি। পরে, এলিয় যিহোবার কাছে প্রার্থনা করেছিলেন আর ঈশ্বর স্বর্গ থেকে অগ্নি নিক্ষেপ করে তার প্রার্থনার উত্তর দিয়েছিলেন। আহাব সেটা দেখেছিলেন। তারপর, এলিয় আহাবকে বলেছিলেন, যিহোবা খরা দূর করে দেবেন এবং ভারী বৃষ্টিপাত হবে। (১ রাজা. ১৮:২২-৪৫) এইসমস্ত অলৌকিক কাজ আহাব দেখেছিলেন। কিন্তু তারপরও তিনি এটা বিশ্বাস করতে চাননি, তিনি যিহোবার শক্তি দেখেছেন। এই উদাহরণগুলো থেকে আমরা কী শিখতে পারি? আমাদের জীবনে ঈশ্বরের হস্ত খুঁজে দেখার চেষ্টা করতে হবে।

তারা ঈশ্বরের হস্ত দেখেছিল

৬, ৭. গিবিয়োনীয়রা ও রাহব কোন বিষয়টা স্বীকার করেছিল?

গিবিয়োনীয়রা তাদের আশেপাশের জাতিগুলো থেকে অনেক আলাদা ছিল। তারা ঈশ্বরের হস্ত দেখেছিল। ইস্রায়েলীয়দের সঙ্গে যুদ্ধ করার পরিবর্তে গিবিয়োনীয়রা তাদের সঙ্গে শান্তিস্থাপন করতে চেয়েছিল। কেন? তারা বলেছিল, তারা যিহোবা সম্বন্ধে এবং তিনি যা-কিছু করেছেন, সেই সম্বন্ধে শুনতে পেয়েছে। (যিহো. ৯:৩, ৯, ১০) যিহোবা ইস্রায়েলের পক্ষে যুদ্ধ করছেন, এই বিষয়টা স্বীকার করে তারা বিজ্ঞতার কাজ করেছিল।

রাহবও যিহোবার হস্ত দেখেছিলেন। তিনি ইস্রায়েলীয় ছিলেন না। কিন্তু যিহোবা কীভাবে তাঁর লোকেদের মিশর থেকে মুক্ত করেছেন, সেই বিষয়ে তিনি শুনেছিলেন। দু-জন ইস্রায়েলীয় গুপ্তচর যখন তার কাছে এসেছিলেন, তখন তিনি তাদের বলেছিলেন: “আমি জানি, সদাপ্রভু তোমাদিগকে এই দেশ দিয়াছেন।” রাহবের এই বিশ্বাস ছিল, যিহোবা তাকে ও তার পরিবারকে রক্ষা করতে পারেন। তাই জীবনের ঝুঁকি সত্ত্বেও, তিনি যিহোবার প্রতি তার বিশ্বাস প্রকাশ করেছিলেন।—যিহো. ২:৯-১৩; ৪:২৩, ২৪.

৮. কীভাবে ইস্রায়েলীয়দের মধ্যে কেউ কেউ ঈশ্বরের হস্ত দেখতে পেয়েছিল?

দুষ্ট রাজা আহাবের বিপরীতে, ইস্রায়েলীয়রা যখন এলিয়ের প্রার্থনার উত্তরে স্বর্গ থেকে অগ্নি পতিত হতে দেখেছিল, তখন তাদের মধ্যে কেউ কেউ এটা স্বীকার করেছিল, ঈশ্বরই তা করেছেন। তারা আর্তনাদ করে বলেছিল: “সদাপ্রভুই ঈশ্বর।” (১ রাজা. ১৮:৩৯) তাদের কাছে এটা স্পষ্ট ছিল, তারা ঈশ্বরের শক্তি দেখতে পেয়েছে।

৯. কীভাবে আমরা বর্তমানে যিহোবাকে এবং তাঁর হস্ত দেখতে পারি?

 আমরা কিছু ভালো ও মন্দ উদাহরণ আলোচনা করেছি, যেগুলো ‘ঈশ্বরকে দেখতে পারার’ বা ঈশ্বরের হস্ত দেখার অর্থ কী, তা বুঝতে আমাদের সাহায্য করেছে। আমরা যখন যিহোবা ও তাঁর গুণাবলি সম্বন্ধে জানতে পারি, তখন আমরা “হৃদয়ের চক্ষু” দ্বারা তাঁর হস্ত দেখতে পাই। (ইফি. ১:১৮) এটা আমাদেরকে অতীতের ও বর্তমানের সেই বিশ্বস্ত ব্যক্তিদের অনুকরণ করার জন্য অনুপ্রাণিত করে, যারা দেখতে পেয়েছিল, যিহোবা কীভাবে তাঁর লোকেদের সাহায্য করেছেন। কিন্তু, ঈশ্বর যে বর্তমানে লোকেদের সাহায্য করেন, সেই বিষয়ে কোনো প্রমাণ কি আমাদের কাছে রয়েছে?

বর্তমানে ঈশ্বরের হস্তের প্রমাণ

১০. যিহোবা যে বর্তমানে লোকেদের সাহায্য করে যাচ্ছেন, সেই বিষয়ে কোন প্রমাণ আমাদের কাছে রয়েছে? (শুরুতে দেওয়া ছবিটা দেখুন।)

১০ যিহোবা যে বর্তমানে লোকেদের সাহায্য করে যাচ্ছেন, সেই বিষয়ে আমাদের কাছে প্রচুর প্রমাণ রয়েছে। আমরা প্রায়ই এমন ব্যক্তিদের অভিজ্ঞতা শুনতে পাই, যারা তাদের জীবনে ঈশ্বরের সাহায্য চেয়ে প্রার্থনা করেছিল আর তাদের সেই প্রার্থনার উত্তর দেওয়া হয়েছে। (গীত. ৫৩:২) উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ফিলিপিনসের একটা ছোট্ট দ্বীপে প্রচার করার সময়, অ্যলেন নামে একজন ভাইয়ের সঙ্গে একজন মহিলার দেখা হয়েছিল। সেই মহিলা তাকে দেখে কাঁদতে শুরু করেছিলেন। অ্যলেন বলেন, “ঠিক সেই দিন সকালেই সেই মহিলা যিহোবার কাছে প্রার্থনা করেছিলেন, যেন তাঁর সাক্ষিরা তাকে খুঁজে পায়।” কিশোর বয়সে তিনি যিহোবার সাক্ষিদের সঙ্গে বাইবেল অধ্যয়ন করেছিলেন। কিন্তু বিয়ের পর অন্য দ্বীপে চলে যাওয়ায় তিনি অধ্যয়ন চালিয়ে যেতে পারেননি। ঈশ্বর এত দ্রুত তার প্রার্থনার উত্তর দিয়েছেন যে, সেটা তার হৃদয় ছুঁয়ে গিয়েছিল। এক বছরেরও কম সময়ের মধ্যে তিনি নিজেকে যিহোবার কাছে উৎসর্গ করেছিলেন।

আপনি কি সেই উপায়গুলো খোঁজেন, যেগুলোর মাধ্যমে আপনার জীবনে আপনি যিহোবার হস্ত দেখতে পারেন? (১১-১৩ অনুচ্ছেদ দেখুন)

১১, ১২. (ক) কীভাবে যিহোবা তাঁর দাসদের সাহায্য করছেন? (খ) যিহোবা যেভাবে একজন বোনকে সাহায্য করেছিলেন, তা ব্যাখ্যা করুন।

১১ যিহোবার সাক্ষি হওয়ার আগে অনেক দাস ধূমপান, মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার অথবা পর্নোগ্রাফি দেখার মতো মন্দ অভ্যাসগুলো ত্যাগ করার সময়ে এটা দেখতে পেয়েছে, যিহোবার হস্ত তাদের সাহায্য করছে। কেউ কেউ বলেছে, তারা নিজেদের চেষ্টায় সেই অভ্যাস বন্ধ করতে চেয়েছে, তবে পারেনি। কিন্তু তারা যখন যিহোবার সাহায্য চেয়েছে, তখন তিনি তাদের “পরাক্রমের উৎকর্ষ [“আসাধারণ মহাশক্তি,” বাংলা কমন ল্যাঙ্গুয়েজ ভারশন]” প্রদান করেছেন আর তারা অবশেষে তাদের মন্দ অভ্যাস ত্যাগ করতে পেরেছে।—২ করি. ৪:৭; গীত. ৩৭:২৩, ২৪.

১২ এ ছাড়া, যিহোবা তাঁর দাসদের ব্যক্তিগত সমস্যা সহ্য করার জন্যও সাহায্য করেন। এমি নামে একজন বোনের সেই অভিজ্ঞতা হয়েছিল। তাকে প্রশান্ত মহাসাগরের এক ছোট্ট দ্বীপে একটা কিংডম হল ও একটা মিশনারি হোম নির্মাণে সাহায্য করার জন্য নিযুক্ত করা হয়েছিল। সেখানকার সংস্কৃতি আলাদা ছিল, সেখানে প্রায় সময়ই বিদ্যুৎ ও জল থাকত না আর রাস্তাঘাট জলে ডুবে থাকত। তা ছাড়া, দেশে নিজের পরিবারের কথা মনে করে তার খারাপ লাগত আর তিনি একটা হোটেলের ছোট্ট রুমে থাকতেন। একদিন, তিনি একজন বোনের সঙ্গে কাজ করার সময় অনেক রেগে গিয়েছিলেন। নিজের সেই আচরণের কথা চিন্তা করে তার অনেক খারাপ লেগেছিল। হোটেলের অন্ধকার রুমে ফিরে গিয়ে তিনি যিহোবার কাছে প্রার্থনা করে সাহায্য চেয়েছিলেন। এরপর যখন বিদ্যুৎ চলে আসে, তখন তিনি প্রহরীদুর্গ পত্রিকা থেকে গিলিয়েড গ্র্যাজুয়েশন সম্বন্ধে একটা প্রবন্ধ পড়েছিলেন। ওই প্রবন্ধে সেই একই সমস্যাগুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিল, যেগুলো তিনি সহ্য করছিলেন। তিনি বলেন: “সেই রাতে আমার মনে হয়েছিল, যিহোবা আমার সঙ্গে কথা বলছেন। এটা আমাকে আমার কাজ চালিয়ে যেতে অনুপ্রাণিত করেছিল।”—গীত. ৪৪:২৫, ২৬; যিশা. ৪১:১০, ১৩.

১৩. যিহোবা যে তাঁর লোকেদের প্রচার করার অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সাহায্য করেছেন, সেটার কোন প্রমাণ আমাদের কাছে রয়েছে?

১৩ এ ছাড়া, যিহোবা তাঁর লোকেদেরকে সুসমাচারের পক্ষসমর্থনের ও আইনগত অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সাহায্য করেছেন। (ফিলি. ১:৭) উদাহরণ হিসেবে বলা যায়,  কোনো কোনো সরকার যখন আমাদের প্রচার কাজ বন্ধ করার জন্য চেষ্টা করেছিল, তখন আমরা আদালতে মামলা করেছিলাম। আমরা বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন উচ্চ আদালতে কমপক্ষে ২৬৮টা মামলা জিতেছি আর এগুলোর মধ্যে ২৪টা মামলা ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালত-এ ২০০০ সাল থেকে চলছিল। এটা স্পষ্ট যে, ঈশ্বরের হস্ত কেউই থামাতে পারে না!—যিশা. ৫৪:১৭; পড়ুন, যিশাইয় ৫৯:১.

১৪. ঈশ্বর যে তাঁর লোকেদের সঙ্গে সঙ্গে আছেন, সেই বিষয়ে আমাদের কাছে আরও কী প্রমাণ রয়েছে?

১৪ বিশ্বব্যাপী সুসমাচার প্রচার করা হচ্ছে ঈশ্বরের সাহায্যকারী হস্তের আরও একটা প্রমাণ। (মথি ২৪:১৪; প্রেরিত ১:৮) আর সেইসঙ্গে সমস্ত জাতির মধ্য থেকে আসা যিহোবার দাসদের মধ্যে বিদ্যমান একতা, একমাত্র যিহোবার সাহায্যের ফলেই সম্ভবপর হয়েছে। এই একতা অসাধারণ! এমনকী যারা যিহোবার উপাসনা করে না, তারাও এটা স্বীকার করে: “ঈশ্বর বাস্তবিকই তোমাদের মধ্যবর্ত্তী।” (১ করি. ১৪:২৫) ঈশ্বর যে তাঁর লোকেদের সঙ্গে সঙ্গে আছেন, সেই বিষয়ে আমাদের কাছে প্রচুর প্রমাণ রয়েছে। (পড়ুন, যিশাইয় ৬৬:১৪.) ব্যক্তিগতভাবে আপনার বিষয়ে কী বলা যায়? আপনার জীবনে আপনি কি যিহোবার হস্ত দেখতে পান?

আপনার জীবনে আপনি কি যিহোবার হস্ত দেখতে পান?

১৫. কখনো কখনো, কেন আমরা হয়তো আমাদের জীবনে ঈশ্বরের হস্ত দেখতে পাই না?

১৫ মাঝে মাঝে, আমরা হয়তো আমাদের জীবনে ঈশ্বরের হস্ত দেখতে পাই না। কেন? কারণ আমাদের যখন অনেক সমস্যা থাকে, তখন আমরা হয়তো আগে যিহোবা আমাদের কত বার সাহায্য করেছেন, তা ভুলে যেতে পারি। এলিয়ের ক্ষেত্রে তা ঘটেছিল। তিনি একজন সাহসী ব্যক্তি ছিলেন। কিন্তু রানি ঈষেবল যখন তাকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন, তখন তিনি ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন। এক মুহূর্তের জন্য তিনি ভুলে গিয়েছিলেন, যিহোবা কীভাবে আগে তাকে সাহায্য করেছেন। বাইবেল বলে, এলিয় এমনকী মৃত্যু কামনা করেছিলেন। (১ রাজা. ১৯:১-৪) কোথা থেকে তিনি সাহায্য ও সাহস লাভ করতে পারতেন? তাকে যিহোবার উপর নির্ভর করতে হতো!—১ রাজা. ১৯:১৪-১৮.

১৬. সমস্যার সময়ে আমরা কীভাবে ঈশ্বরের হস্ত দেখতে পারি?

১৬ ইয়োব নিজের সমস্যাগুলোর প্রতি এতটাই মনোনিবেশ করেছিলেন যে, তিনি নিজের পরিস্থিতিকে যিহোবার দৃষ্টিকোণ থেকে দেখেননি। (ইয়োব ৪২:৩-৬)  মাঝে মাঝে, আমাদের বিভিন্ন সমস্যার কারণে আমরাও হয়তো ঈশ্বরের হস্ত দেখতে পাই না। ঈশ্বর আমাদের জন্য যা-কিছু করেছেন, তা দেখার জন্য কোন বিষয়টা আমাদের সাহায্য করতে পারে? বাইবেল আমাদের সমস্যার বিষয়ে কী বলে, তা নিয়ে আমাদের ধ্যান করতে হবে। তা করলে, যিহোবা আমাদের কাছে আরও বাস্তব হয়ে উঠবেন আর আমরাও এটা বলতে পারব: “পূর্ব্বে তোমার বিষয় কর্ণে শুনিয়াছিলাম, কিন্তু সম্প্রতি আমার চক্ষু তোমাকে দেখিল।”

অন্যেরা যেন যিহোবাকে দেখতে পারে, সেই ক্ষেত্রে সাহায্য করার জন্য যিহোবা কি আপনাকে ব্যবহার করছেন? (১৭, ১৮ অনুচ্ছেদ দেখুন)

১৭, ১৮. (ক) কীভাবে আপনার জীবনে আপনি যিহোবার হস্ত দেখতে পারেন? (খ) ঈশ্বর বর্তমানে আমাদের যেভাবে সাহায্য করছেন, সেই বিষয়ে একটা অভিজ্ঞতা বর্ণনা করুন।

১৭ কীভাবে আপনার জীবনে আপনি যিহোবার হস্ত দেখতে পারেন? আসুন আমরা পাঁচটা ক্ষেত্র বিবেচনা করি। প্রথমত, আপনি হয়তো মনে করে দেখতে পারেন, যিহোবা আপনাকে কীভাবে সত্য খুঁজে পেতে সাহায্য করেছেন। দ্বিতীয়ত, আপনি হয়তো খ্রিস্টীয় সভাতে গিয়ে এমন একটা বক্তৃতা শোনার অভিজ্ঞতা স্মরণ করতে পারেন, যা শুনে আপনি বলেছিলেন, “আমার ঠিক এটাই দরকার ছিল!” তৃতীয়ত, আপনি হয়তো দেখেছেন, যিহোবা কীভাবে আপনার নির্দিষ্ট কোনো প্রার্থনার উত্তর দিয়েছেন। চতুর্থত, আপনি হয়তো যিহোবার জন্য আরও বেশি কাজ করার ইচ্ছাপোষণ করেছিলেন আর আপনি দেখেছেন, সেই লক্ষ্যে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে তিনি কীভাবে আপনাকে সাহায্য করেছেন। পঞ্চমত, যিহোবার সেবায় আপনার নিয়োজিত সময় কেড়ে নিচ্ছে বলে আপনি হয়তো চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন আর এরপর দেখেছেন ঈশ্বর তাঁর এই প্রতিজ্ঞা রক্ষা করেছেন: “আমি . . . কোন ক্রমে তোমাকে ত্যাগ করিব না।” (ইব্রীয় ১৩:৫) আমরা যখন যিহোবার সঙ্গে এক দৃঢ় সম্পর্ক বজায় রাখব, তখন আমরা সহজেই আমাদের জীবনে তাঁর হস্ত দেখতে পারব।

১৮ সারা নামে কেনিয়ার একজন বোন বলেন: “আমি এমন একজন ছাত্রীর জন্য প্রার্থনা করেছিলাম, যার বিষয়ে আমার মনে হয়েছিল, তিনি বাইবেল অধ্যয়ন করতে তেমন পছন্দ করেন না। আমার সেই অধ্যয়ন বন্ধ করে দেওয়া উচিত কি না, সেই বিষয়ে আমি যিহোবাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম। ‘আমেন’ বলার সঙ্গেসঙ্গেই আমার ফোন বেজে উঠেছিল। সেই বাইবেল ছাত্রী আমাকে এটা জিজ্ঞেস করেছিলেন, তিনি আমার সঙ্গে সভায় যেতে পারেন কি না! আমি একেবারে হতবাক হয়ে গিয়েছিলাম!” ঈশ্বর আমাদের জন্য যা করছেন, সেগুলো যখন আমরা খুঁজে বের করার চেষ্টা করি, তখন আমরা তাঁর সাহায্যকারী হস্ত দেখতে পাই। এশিয়ায় বসবাসকারী একজন বোন রুনা বলেন, যিহোবা আমাদের জীবনে যেভাবে সাহায্য করেন, তা দেখার জন্য সময় দিতে হবে। তিনি আরও বলেন: “তবে একবার যখন আপনি সেই চেষ্টা করবেন, তখন আমাদের ব্যাপারে তিনি যে কতটা আগ্রহী, তা দেখে আপনি অবাক হয়ে যাবেন!”

১৯. ঈশ্বরের হস্ত দেখার জন্য আমাদের কী করতে হবে?

১৯ যিশু বলেছিলেন, যারা “নির্ম্মলান্তঃকরণ,” তারা “ঈশ্বরকে দেখতে পাবে।” (মথি ৫:৮) এর অর্থ কী? আমাদের নিজেদের চিন্তাভাবনা বিশুদ্ধ রাখতে হবে এবং এমন যেকোনো কিছু করা বন্ধ করতে হবে, যা ভুল। (পড়ুন, ২ করিন্থীয় ৪:২.) এই প্রবন্ধে আমরা শিখেছি, ঈশ্বরের হস্ত দেখতে শেখার জন্য তাঁর সঙ্গে আমাদের সম্পর্ককে শক্তিশালী করতে হবে। পরবর্তী প্রবন্ধে আমরা আলোচনা করব, আমাদের জীবনে যিহোবার হস্ত আরও স্পষ্টভাবে দেখার জন্য বিশ্বাস কীভাবে সাহায্য করতে পারে।