সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি দ্বিতীয় মেনুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

যিহোবার সাক্ষিরা

বাংলা

সজাগ হোন!  |  নং  ১ ২০১৬

 পরিবারের জন্য সাহায্য | সন্তান লালনপালন

যেভাবে সন্তানের প্রশংসা করবেন

যেভাবে সন্তানের প্রশংসা করবেন

প্রতিদ্বন্দ্বিতা

কোনো কোনো ব্যক্তি মনে করে, বাবা-মায়ের পক্ষে সন্তানের অতিরিক্ত প্রশংসা করা অসম্ভব। আবার অন্যেরা দাবি করে, ক্রমাগত প্রশংসা করলে আপনার সন্তান বিগড়ে যাবে এবং আপনার মাথায় চড়ে বসবে।

আপনি আপনার সন্তানের কতটা প্রশংসা করবেন, তা বিবেচনা করার সময় আপনাকে এই বিষয়টা নিয়েও চিন্তা করতে হবে যে, আপনি কোন ধরনের প্রশংসা করছেন। কোন ধরনের প্রশংসা আপনার সন্তানকে উৎসাহিত করবে? কোন ধরনের প্রশংসা করলে তার ক্ষতি হবে? আপনি কীভাবে প্রশংসা করলে আপনার সন্তানের জন্য তা সর্বোত্তম হবে?

আপনার যা জানা উচিত

সমস্ত ধরনের প্রশংসা সমান নয়। নীচে দেওয়া বিষয়গুলো বিবেচনা করুন:

অতিরিক্ত প্রশংসা করা ক্ষতিকর হতে পারে। কোনো কোনো বাবা-মা সন্তানের মধ্যে আত্মসম্মানবোধ বৃদ্ধি করার জন্য অকারণেই প্রশংসা করে থাকে। কিন্তু, ড. ডেভিড ওয়ল্স সাবধান করে দিয়ে বলেন, ছোটো ছেলে-মেয়েরা “খুবই চালাক হয় আর আপনি যখন অতিরিক্ত প্রশংসা করেন, তখন তারা সহজেই বুঝতে পারে, আপনি মন থেকে তা করছেন না।” তিনি আরও বলেন, “আপনার সন্তানরা জানে, তারা [এই প্রশংসা পাওয়ার] যোগ্য নয় আর তাই আপনার উপর থেকে হয়তো তাদের বিশ্বাস উঠে যাবে।” *

দক্ষতার জন্য প্রশংসা করা ভালো। ধরুন, আপনার মেয়ে ভালো ছবি আঁকতে পারে। স্বভাবতই আপনি তার প্রশংসা করবেন আর এই প্রশংসা তাকে নিজের দক্ষতা আরও বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। কিন্তু, এটার একটা কুফলও রয়েছে। শুধুমাত্র প্রতিভার উপর ভিত্তি করে প্রশংসা করা হলে তা আপনার সন্তানকে এটা চিন্তা করতে পরিচালিত করতে পারে যে, কেবল সেই দক্ষতাগুলো গড়ে তোলা ভালো, যেগুলো তার কাছে সহজ বলে মনে হয়। ব্যর্থ হওয়ার ভয়ে সে এমনকী নতুন কোনো কাজও করতে চাইবে না। সে হয়তো এই যুক্তি দেখাবে, ‘কোনো কাজ কঠিন মানে, সেই কাজ করার প্রয়োজনীয় দক্ষতা আমার নেই, তাই চেষ্টা করেই বা কী লাভ?’

প্রচেষ্টার জন্য প্রশংসা করা সবচেয়ে ভালো। যে-সন্তানদের শুধুমাত্র দক্ষতার উপর ভিত্তি না করে তাদের কঠোর পরিশ্রম এবং অধ্যবসায়ের উপর ভিত্তি করে প্রশংসা করা হয়, তারা একটা গুরুত্বপূর্ণ সত্য উপলব্ধি করতে পারে আর তা  হল, দক্ষতা গড়ে তোলার জন্য ধৈর্য ও প্রচেষ্টার প্রয়োজন। প্রম ও আস্থার সাথে অনুমতি দেওয়া (ইংরেজি) বইয়ে বলা হয়েছে, ‘কোনো ভালো ফল পেতে গেলে প্রচেষ্টা করতে হয় জেনে, এমনকী সেই কাজ করতে গিয়ে ব্যর্থ হলেও, সেটাকে তারা হার বলে মনে করে না, বরং সেখান থেকে কিছু শেখে।’

আপনি যা করতে পারেন

কেবল প্রতিভার জন্য নয় বরং প্রচেষ্টার জন্যও প্রশংসা করুন। “তোমার আঁকার হাত খুব ভালো” এই কথা বলার পরিবর্তে, “তুমি বেশ চিন্তাভাবনা করে ছবিটা এঁকেছ” বললে ফল আরও ভালো হতে পারে। দু-রকমভাবেই প্রশংসা করা যায় কিন্তু প্রথমটা আপনার সন্তানের মধ্যে অজান্তেই এই ধারণা ঢুকিয়ে দিতে পারে, আপনার সন্তান একমাত্র সেই বিষয়েই ভালো কিছু করতে পারে, যে-বিষয়ে সে সহজাতভাবে দক্ষ।

আপনি যখন আপনার সন্তানের প্রচেষ্টার জন্য তার প্রশংসা করেন, তখন আপনি তাকে এই বিষয়টা শেখান যে, অনুশীলন করলে দক্ষতা বৃদ্ধি পায়। আপনার সন্তান হয়তো আস্থার সঙ্গে নতুন নতুন প্রতিদ্বন্দ্বিতা গ্রহণ করতে শেখে।—বাইবেলের নীতি: হিতোপদেশ ১৪:২৩.

আপনার সন্তানকে ব্যর্থতার সঙ্গে মোকাবিলা করতে সাহায্য করুন। ভালো ব্যক্তিরাও ভুল করে থাকে আর তা এমনকী একাধিক বার। (হিতোপদেশ ২৪:১৬) কিন্তু, প্রত্যেক বার উছোট খাওয়ার পর তারা উঠে দাঁড়ায়, নিজেদের অভিজ্ঞতা থেকে কিছু শেখে এবং সামনের দিকে এগিয়ে যায়। কীভাবে আপনি আপনার সন্তানকে এইরকম ইতিবাচক মনোভাব গড়ে তোলার জন্য সাহায্য করতে পারেন?

আবারও, সন্তানের প্রচেষ্টার প্রতি মনোযোগ দিন। একটা উদাহরণ বিবেচনা করুন: আপনি হয়তো প্রায়ই আপনার মেয়েকে বলেন, “অঙ্কে তোমার মাথা ভালো।” কিন্তু, তারপর সে অঙ্ক পরীক্ষায় ফেল করল। সে হয়তো ভাবতে পারে, অঙ্কে সে আর ভালো করতে পারবে না, তাই উন্নতি করার চেষ্টা করে কী লাভ?

আপনি যখন আপনার মেয়ের প্রচেষ্টার উপর মনোযোগ দেন, তখন আপনি তাকে ধৈর্য গড়ে তুলতে সাহায্য করেন। আর এভাবে তাকে দেখতে সাহায্য করেন যে, ব্যর্থতা মানেই বিপর্যয় নয়। এর ফলে, হাল ছেড়ে না দিয়ে সে হয়তো সেই কাজটা আরেক বার করতে পারে অথবা আরেকটু প্রচেষ্টা করতে পারে।—বাইবেলের নীতি: যাকোব ৩:২.

সদয়ভাবে ভুল ধরিয়ে দিন। সদয়ভাবে সন্তানের ভুল ধরিয়ে দিলে, সেটা তার মন ভেঙে দেওয়ার পরিবর্তে তাকে উন্নতি করতে সাহায্য করবে। এ ছাড়া, আপনি যদি উপযুক্ত কারণে নিয়মিতভাবে আপনার সন্তানের প্রশংসা করেন, তা হলে তার উন্নতির জন্য আপনি যখন তাকে কিছু পরামর্শ দেবেন, তখন সে তা মেনে নেবে। সে যা অর্জন করবে, সেটা দেখে সন্তানের সঙ্গে সঙ্গে আপনিও খুশি হবেন।—বাইবেলের নীতি: হিতোপদেশ ১৩:৪.▪ (g15-E 11)

^ অনু. 8 যে-বই থেকে নেওয়া হয়েছে সেটা হল, না: সব বয়সের বাচ্চাদের কেন এটা শোনা প্রয়োজন এবং যেভাবে বাবা-মায়েরা না বলতে পারে (ইংরেজি)।

আরও জানুন

আপনার পরিবার সুখী হতে পারে

যেভাবে আপনার সন্তানকে শিক্ষা দেওয়া যায়

শাসন করার সঙ্গে কেবল নিয়মনীতি প্রদান করা ও শাস্তি দেওয়ার চেয়ে আরও বেশি কিছু জড়িত।