সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি দ্বিতীয় মেনুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

যিহোবার সাক্ষিরা

বাংলা

সজাগ হোন!  |  অক্টোবর ২০১৪

 প্রচ্ছদ বিষয় | মর্মান্তিক ঘটনার সঙ্গে যেভাবে মোকাবিলা করতে পারেন

সুস্বাস্থ্য হারানো

সুস্বাস্থ্য হারানো

আর্জেন্টিনার মেবেল শারীরিকভাবে অক্ষম ব্যক্তিদের চিকিৎসা করতেন। তার দিনগুলো বেশ ব্যস্ততার মধ্যেই কাটছিল। কিন্তু ২০০৭ সালে হঠাৎই তিনি ক্লান্তিবোধ করতে শুরু করেন আর সেইসঙ্গে প্রত্যেক দিন তার অসহ্য মাথাব্যথাও শুরু হয়। তিনি বলেন, ‘আমি অনেক ডাক্তার দেখিয়েছি এবং বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসাও করিয়েছি কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।’ অবশেষে মেবেল এমআরআই স্ক্যান করান এবং সেখানে ধরা পড়ে যে, তার ব্রেন টিউমার হয়েছে। তিনি বলেন: “আমার মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়েছিল! আমি বিশ্বাসই করতে পারছিলাম না যে, আমি এইরকম একটা রোগ নিয়ে বেঁচে আছি।

“আমার রোগ যে কতটা গুরুতর, অপারেশন না হওয়া পর্যন্ত আমি তা বুঝতেই পারিনি। ইন্টেনসিভ কেয়ারে যখন আমার জ্ঞান ফেরে, তখন আমি নড়াচড়া করতে পারছিলাম না। একদৃষ্টে ছাদের দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া আমি আর কিছুই করতে পারছিলাম না। অপারেশনের আগে পর্যন্ত আমি ইচ্ছেমতো এদিক-ওদিক যেতে পারতাম। হঠাৎই যেন সব কিছু থেমে যায়। ইন্টেনসিভ কেয়ারে উদ্‌বিগ্নতার মধ্যে আমার দিন কাটত আর সেইসঙ্গে ডাক্তারি যন্ত্রপাতি, এমার্জেন্সি অ্যালার্ম ও অন্যান্য রোগীদের গোঁগানির আওয়াজ শুনে শুনে আমার দম বন্ধ হয়ে আসত। যন্ত্রণা ও দুঃখকষ্ট যেন আমাকে ঘিরে ধরেছিল।

“আগের তুলনায় এখন আমি কিছুটা সুস্থ। আমি নিজে নিজে হাঁটতে পারি আর কখনো কখনো আমি একা একাই বাইরে যাই। তবে, আমি এখন আগের মতো আর স্পষ্ট দেখতে পাই না ও আমার শারীরিক ক্ষমতাও কমে গিয়েছে।”

মর্মান্তিক ঘটনার সঙ্গে মোকাবিলা করা

এক ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি বজায় রাখুন। বাইবেলের হিতোপদেশ ১৭:২২ পদ বলে: “সানন্দ হৃদয় স্বাস্থ্যজনক; কিন্তু ভগ্ন আত্মা অস্থি শুষ্ক করে।” মেবেল স্মরণ করে বলেন: “একসময় আমি যাদের চিকিৎসা করতাম, তারা যে-সমস্যাগুলোর মুখোমুখি হতো, সুস্থ হয়ে ওঠার সময় আমাকেও সেই একই সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছিল। ব্যায়ামগুলো করতে আমার খুব কষ্ট হতো এবং একেক সময় মনে হতো আমার দ্বারা বুঝি আর হবে না। কিন্তু, এই প্রচেষ্টা যে একদিন ভালো ফল নিয়ে আসবে, তা চিন্তা করে আমি এই ধরনের খারাপ চিন্তাভাবনাকে দূর করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করতাম।”

সেই দিকে মনোযোগ দিন, যেটা আপনাকে আশা দেয়। মেবেল বলেন, ‘মর্মান্তিক ঘটনাগুলো কেন ঘটে সেই সম্বন্ধে বাইবেল যা বলে, তা আমি জানতাম। আমি এও জানতাম যে, এক-একটা দিন যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা এমন একটা সময়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি, যখন চিরকালের জন্য যন্ত্রণা লোপ পাবে।’ *

ঈশ্বর যে আপনার জন্য ব্যক্তিগতভাবে চিন্তা করেন, তা উপলব্ধি করুন। (১ পিতর ৫:৭) এই বিষয়টা কীভাবে তাকে সাহায্য করেছে, তা স্মরণ করে মেবেল বলেন: “আমাকে যখন অপারেশনের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, তখন আমি যিশাইয় ৪১:১০ পদের কথাগুলোর সত্যতা আরও ভালোভাবে উপলব্ধি করতে পেরেছিলাম। সেখানে ঈশ্বর আশ্বাস দেন: ‘ভয় করিও না, কারণ আমি তোমার সঙ্গে সঙ্গে আছি।’ আমি এটা জেনে অনেক শান্তি পেয়েছিলাম যে, পরিণতি যা-ই হোক না কেন, যিহোবা ঈশ্বর আমার যত্ন নেবেন।”

আপনি কি জানতেন? বাইবেল শিক্ষা দেয় যে, এমন এক সময় আসতে চলেছে, যখন মানবজাতি আর স্বাস্থ্যগত সমস্যার দ্বারা জর্জরিত হবে না।—যিশাইয় ৩৩:২৪; ৩৫:৫, ৬. (g১৪-E ০৭)

^ অনু. 8 আরও তথ্যের জন্য বাইবেল প্রকৃতপক্ষে কী শিক্ষা দেয়? বইয়ের ১১ অধ্যায় দেখুন। এই বইটা অনলাইনে www.jw.org ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে।