সরাসরি বিষয়বস্তুতে যান

সরাসরি দ্বিতীয় মেনুতে যান

সরাসরি বিষয়সূচিতে যান

যিহোবার সাক্ষিরা

বাংলা

প্রহরীদুর্গ (অধ্যয়ন সংস্করণ)  |  জানুয়ারি ২০১৬

‘ভ্রাতৃপ্রমে স্থির থাকিতে’ দৃঢ়সংকল্পবদ্ধ হোন!

‘ভ্রাতৃপ্রমে স্থির থাকিতে’ দৃঢ়সংকল্পবদ্ধ হোন!

“ভ্রাতৃপ্রেম স্থির থাকুক।”ইব্রীয় ১৩:১.

গান সংখ্যা: ৩, ২০

১, ২. কেন পৌল ইব্রীয় খ্রিস্টানদের উদ্দেশে একটা চিঠি লিখেছিলেন?

একষট্টি খ্রিস্টাব্দে, ইস্রায়েলজুড়ে বিভিন্ন মণ্ডলী তুলনামূলকভাবে শান্তি উপভোগ করছিল। প্রেরিত পৌল যদিও রোমের কারাগারে বন্দি ছিলেন, তবে তিনি শীঘ্রই মুক্তিলাভ করার আশা করছিলেন। তার ভ্রমণসঙ্গী তীমথিয় সবেমাত্র কারাগার থেকে মুক্ত হয়েছিলেন এবং তারা একসঙ্গে যিহূদিয়ার ভাই-বোনদের সঙ্গে দেখা করার আশা করছিলেন। (ইব্রীয় ১৩:২৩) কিন্তু, মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যেই যিহূদিয়ার খ্রিস্টানদের ও সেইসঙ্গে বিশেষ করে যিরূশালেমে বসবাসরত ব্যক্তিদের দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হয়েছিল। কেন? অনেক আগে, যিশু তাঁর অনুসারীদের বলেছিলেন, তারা যখন যিরূশালেমকে সৈন্যসামন্ত দ্বারা বেষ্টিত দেখবে, তখন তাদের পালিয়ে যেতে হবে।—লূক ২১:২০-২৪.

যিশু তাঁর অনুসারীদের সেই সতর্কবাণী দেওয়ার পর ২৮ বছর কেটে গিয়েছিল। সেই সময়ে, ইস্রায়েলে থাকা খ্রিস্টানরা প্রচণ্ড তাড়না ও বিভিন্ন পরীক্ষা সত্ত্বেও বিশ্বস্ততা বজায় রেখেছিল। (ইব্রীয় ১০:৩২-৩৪) কিন্তু পৌল, ভবিষ্যতে যা ঘটবে, সেটার জন্য তাদের প্রস্তুত করতে চেয়েছিলেন। তারা তাদের বিশ্বাসের সবচেয়ে বড়ো পরীক্ষার মুখোমুখি হতে যাচ্ছিল। (মথি ২৪:২০, ২১; ইব্রীয় ১২:৪) যিশুর কথা অনুযায়ী পালিয়ে যাওয়ার জন্য তাদের আগের চেয়ে আরও বেশি ধৈর্য ও বিশ্বাস প্রয়োজন হবে আর সেই বিষয়ের উপর তাদের জীবন নির্ভর  করবে। (পড়ুন, ইব্রীয় ১০:৩৬-৩৯.) তাই, যিহোবা পৌলকে অনুপ্রাণিত করেছিলেন, যেন তিনি তার প্রিয় ভাই-বোনদের উদ্দেশে একটা চিঠি লেখেন। তাদের প্রতি যা ঘটতে যাচ্ছিল, সেই বিষয়ে তাদের শক্তিশালী করার জন্য এই চিঠি লেখা হয়েছিল আর এই চিঠিটা এখন বাইবেলের ইব্রীয় পুস্তক হিসেবে সুপরিচিত।

৩. কেন আমাদের ইব্রীয় পুস্তকের প্রতি আগ্রহী হওয়া উচিত?

বর্তমানে ঈশ্বরের লোক হিসেবে আমাদের ইব্রীয় পুস্তকের প্রতি আগ্রহী হওয়া উচিত। কেন? কারণ আমরা যিহূদিয়ার খ্রিস্টানদের মতো একই পরিস্থিতিতে রয়েছি। আমরা ‘বিষম সময়ে’ বাস করছি আর আমাদের মধ্যে অনেকে গুরুতর পরীক্ষা বা তাড়নার সময় বিশ্বস্ততা বজায় রেখেছে। (২ তীম. ৩:১, ১২) তবে, আমাদের মধ্যে অধিকাংশ ব্যক্তিই শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতিতে রয়েছি আর আমরা সরাসরি তাড়না ভোগ করি না। তাই পৌলের সময়ের খ্রিস্টানদের মতো, আমাদেরও সতর্ক থাকতে হবে। কেন? খুব শীঘ্র আমরাও আমাদের বিশ্বাসের সবচেয়ে বড়ো পরীক্ষার মুখোমুখি হব!—পড়ুন, লূক ২১:৩৪-৩৬.

৪. দু-হাজার ষোলো সালের বার্ষিক শাস্ত্রপদ কী আর কেন তা উপযুক্ত?

ভবিষ্যতের সেই ঘটনার জন্য প্রস্তুত থাকার ক্ষেত্রে কী আমাদেরকে সাহায্য করতে পারে? ইব্রীয় পুস্তকে পৌল এমন অনেক বিষয় সম্বন্ধে বলেছিলেন, যেগুলো আমাদের বিশ্বাস শক্তিশালী করার জন্য সাহায্য করবে। ইব্রীয় ১৩:১ পদে অতীব গুরুত্বপূর্ণ এক অনুস্মারক রয়েছে। এই পদ আমাদের উৎসাহিত করে: “ভ্রাতৃপ্রেম স্থির থাকুক।” ২০১৬ সালের বার্ষিক শাস্ত্রপদ হিসেবে এই পদ বাছাই করা হয়েছে।

২০১৬ সালের জন্য আমাদের বার্ষিক শাস্ত্রপদ: “ভ্রাতৃপ্রেম স্থির থাকুক।”—ইব্রীয় ১৩:১

ভ্রাতৃপ্রেম কী?

৫. ভ্রাতৃপ্রেম কী?

ভ্রাতৃপ্রেম কী? পৌল মূল ভাষায় যে-গ্রিক শব্দ ব্যবহার করেছিলেন, সেটার আক্ষরিক অর্থ হল, “একজন ভাইয়ের প্রতি স্নেহ।” ভ্রাতৃপ্রেম হচ্ছে পরিবারের সদস্য অথবা ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধবের প্রতি এক গভীর ও উষ্ণ অনুভূতি। (যোহন ১১:৩৬) আমরা শুধু ভাই-বোন হওয়ার ভান করি না, আমরা সত্যিই ভাই-বোন। (মথি ২৩:৮) পৌল বলেন: “ভ্রাতৃপ্রেমে পরস্পর স্নেহশীল হও; সমাদরে এক জন অন্যকে শ্রেষ্ঠ জ্ঞান কর।” (রোমীয় ১২:১০) এই কথাগুলো প্রকাশ করে, আমাদের ভাই-বোনের প্রতি আমাদের স্নেহ কতটা গভীর। এই ভ্রাতৃপ্রেম ও সেইসঙ্গে খ্রিস্টীয় নীতির উপর ভিত্তি করে দেখানো প্রেম, ঈশ্বরের লোকেদেরকে পরস্পরের ঘনিষ্ঠ বন্ধু হতে এবং একতাবদ্ধ হতে সাহায্য করে।

৬. সত্য খ্রিস্টানরা কাদের প্রতি ভ্রাতৃপ্রেম দেখিয়ে থাকে এবং কেন?

“ভ্রাতৃপ্রেম” অভিব্যক্তিটা বেশিরভাগ সময়ই খ্রিস্টীয় সাহিত্যাদিতে পাওয়া যায়। অতীতে যিহুদিদের জন্য “ভাই” শব্দটা সাধারণত কোনো আত্মীয়কে এবং কখনো কখনো পরিবারের বাইরের কোনো ব্যক্তিকে বোঝানোর জন্য ব্যবহার করা হতো। তবে এই শব্দ দিয়ে কোনো ন-যিহুদি ব্যক্তিকে বোঝানো হতো না। কিন্তু সত্য খ্রিস্টান হিসেবে, অন্য যেকোনো সত্য খ্রিস্টানই হলেন আমাদের “ভাই,” তা তিনি যে-দেশের নাগরিকই হোন না কেন। (রোমীয় ১০:১২) যিহোবা আমাদের শিক্ষা দিয়েছেন, যেন আমরা পরস্পরকে ভাই-বোন হিসেবে ভালোবাসি। (১ থিষল. ৪:৯) কিন্তু, কেন ভ্রাতৃপ্রেমে স্থির থাকা বা ভ্রাতৃপ্রেম দেখিয়ে চলা গুরুত্বপূর্ণ?

কেন ভ্রাতৃপ্রেম দেখিয়ে চলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ?

৭. (ক) ভ্রাতৃপ্রেম দেখানোর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ কী? (খ) একে অন্যের প্রতি আমাদের প্রেমকে শক্তিশালী করার আরেকটা কারণ কী?

ভ্রাতৃপ্রেম দেখানোর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হল, যিহোবা আমাদের তা দেখাতে বলেন। আমরা যদি আমাদের ভাই-বোনদের প্রতি ভালোবাসা না দেখাই, তা হলে আমরা যিহোবাকে সত্যিকার অর্থে ভালোবাসতে পারি না। (১ যোহন ৪:৭, ২০, ২১) ভ্রাতৃপ্রেম দেখানোর আরেকটা কারণ হল, আমাদের একে অন্যকে প্রয়োজন আর তা বিশেষভাবে কঠিন সময়ে। পৌল যখন ইব্রীয় খ্রিস্টানদের উদ্দেশে  চিঠি লিখেছিলেন, তখন তিনি এটা জানতেন, শীঘ্রই কাউকে কাউকে নিজেদের ঘরবাড়ি ও ব্যক্তিগত সম্পদ ত্যাগ করতে হবে। সেই সময় কতটা কঠিন হবে, তা যিশু বর্ণনা করেছিলেন। (মার্ক ১৩:১৪-১৮; লূক ২১:২১-২৩) তাই, সেই সময় আসার আগে, খ্রিস্টানদের পরস্পরের প্রতি তাদের প্রেম শক্তিশালী করা প্রয়োজন ছিল।—রোমীয় ১২:৯.

৮. মহাক্লেশ শুরু হওয়ার আগে এখন আমাদের কী করা প্রয়োজন?

মানব ইতিহাসের সবচেয়ে বড়ো ক্লেশ শীঘ্র আসতে যাচ্ছে। (মার্ক ১৩:১৯; প্রকা. ৭:১-৩) তাই, আমাদের এই পরামর্শের প্রতি বাধ্য থাকতে হবে: “হে আমার জাতি, চল, তোমার অন্তরাগারে প্রবেশ কর, তোমার দ্বার সকল রুদ্ধ কর; অল্পক্ষণ মাত্র লুক্কায়িত থাক, যে পর্য্যন্ত ক্রোধ অতীত না হয়।” (যিশা. ২৬:২০) এই ‘অন্তরাগার’ হয়তো আমাদের মণ্ডলীগুলোকে বোঝাতে পারে। সেখানে আমরা আমাদের ভাই-বোনদের সঙ্গে যিহোবার উপাসনা করি। তবে, আমাদের শুধু নিয়মিতভাবে মিলিত হওয়ার চেয়ে আরও বেশি কিছু করতে হবে। পৌল ইব্রীয় খ্রিস্টানদের মনে করিয়ে দিয়েছিলেন, প্রেম দেখানোর জন্য তাদের পরস্পরকে উৎসাহিত করা উচিত এবং পরস্পরের মঙ্গল করা উচিত। (ইব্রীয় ১০:২৪, ২৫) আমাদের এখনই ভ্রাতৃপ্রেমকে শক্তিশালী করা প্রয়োজন কারণ ভবিষ্যতে আমরা যেকোনো পরীক্ষার মুখোমুখি হই না কেন, এই প্রেম আমাদের তা সহ্য করতে সাহায্য করবে।

৯. (ক) বর্তমানে ভ্রাতৃপ্রেম দেখানোর কোন সুযোগ আমাদের রয়েছে? (খ) যিহোবার লোকেরা যেভাবে ভ্রাতৃপ্রেম দেখিয়ে থাকে, সেটার কিছু উদাহরণ দিন।

বর্তমানে, এমনকী মহাক্লেশ শুরু হওয়ার আগেই, আমাদের ভ্রাতৃপ্রেম দেখানোর প্রচুর সুযোগ রয়েছে। আমাদের অনেক ভাই-বোন ভূমিকম্প, বন্যা, ঘূর্ণিঝড়, সুনামি ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে কষ্টভোগ করে। কোনো কোনো ভাই-বোন তাড়না সহ্য করে। (মথি ২৪:৬-৯) আর এই কলুষিত জগতে বাস করার কারণে প্রতিদিন আমাদের আর্থিক সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। (প্রকা. ৬:৫, ৬) কিন্তু, এই ধরনের সমস্যা যখন বৃদ্ধি পায়, তখন তাদের প্রতি প্রেম দেখানোর সুযোগ আরও বেড়ে যায়। এই জগৎ যদিও প্রেম দেখায় না, কিন্তু আমাদের ভ্রাতৃপ্রেম দেখিয়ে চলতে হবে। (মথি ২৪:১২) [1]

কীভাবে আমরা ভ্রাতৃপ্রেম দেখিয়ে চলতে পারি?

১০. এখন আমরা কী পরীক্ষা করব?

১০ যদিও আমাদের বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে, কিন্তু কীভাবে আমরা ভ্রাতৃপ্রেম দেখানোর বিষয়ে খেয়াল রাখতে পারি? কীভাবে আমরা প্রমাণ করতে পারি, আমাদের ভাই-বোনদের প্রতি আমাদের এই ধরনের স্নেহ রয়েছে? “ভ্রাতৃপ্রেম স্থির থাকুক,” এই কথা বলার পর প্রেরিত পৌল এমন কিছু বিষয় তুলে ধরেছিলেন, যেগুলো খ্রিস্টানরা ভ্রাতৃপ্রেম দেখানোর জন্য করতে পারে। আসুন, আমরা এখন সেগুলোর মধ্যে ছয়টা বিষয় পরীক্ষা করি।

১১, ১২. অতিথিসেবা দেখানোর অর্থ কী? (শুরুতে দেওয়া ছবিটা দেখুন।)

১১ “অতিথিসেবা ভুলিয়া যাইও না।” (পড়ুন, ইব্রীয় ১৩:২.) “অতিথিসেবা” বলতে কী বোঝায়? পৌল যে-শব্দ ব্যবহার করেছিলেন, সেটার আক্ষরিক অর্থ হল “অপরিচিত ব্যক্তিদের প্রতি দয়া” দেখানো। এই অভিব্যক্তি হয়তো আমাদেরকে অব্রাহাম ও লোটের কথা মনে করিয়ে দেয়। এই দুই ব্যক্তি এমন আগন্তুকদের প্রতি দয়া দেখিয়েছিলেন, যাদের তারা চিনতেন না। অবশেষে, অব্রাহাম ও লোট জানতে পেরেছিলেন, সেই অপরিচিত ব্যক্তিরা আসলে স্বর্গদূত। (আদি. ১৮:২-৫; ১৯:১-৩) এই উদাহরণ ইব্রীয় খ্রিস্টানদেরকে অতিথিসেবক হওয়ার মাধ্যমে ভ্রাতৃপ্রেম দেখাতে উৎসাহিত করেছিল।

১২ কীভাবে আমরা অন্যদের প্রতি ভ্রাতৃপ্রেম দেখাতে পারি? আমরা ভাই-বোনদের এক বেলার খাবারের জন্য অথবা কিছুটা উৎসাহ দেওয়ার জন্য আমাদের ঘরে আমন্ত্রণ জানাতে পারি। এমনকী আমরা যদি আমাদের সীমা অধ্যক্ষ ও তার স্ত্রী সম্বন্ধে ভালোভাবে না জানি, তবুও আমাদের মণ্ডলী পরিদর্শন করার সময় আমরা তাদের আমন্ত্রণ জানাতে পারি।  (৩ যোহন ৫-৮) এর জন্য আমাদের অনেক বড়ো ভোজ প্রস্তুত অথবা অনেক টাকাপয়সা খরচ করতে হবে না। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে ভাই-বোনদের উৎসাহিত করা, আমাদের যা আছে তা দেখানোর মাধ্যমে তাদের অভিভূত করা নয়। আর যারা আমাদের কোনো-না-কোনো উপায়ে প্রতিদান দিতে পারবে, কেবল তাদেরকেই আমাদের আমন্ত্রণ জানানো উচিত নয়। (লূক ১০:৪২; ১৪:১২-১৪) সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টা হল, অতিরিক্ত ব্যস্ততার কারণে আমরা যেন কখনো অতিথিসেবা দেখাতে ভুলে না যাই!

১৩, ১৪. কীভাবে আমরা ‘বন্দিগণকে স্মরণ করিতে’ পারি?

১৩ “বন্দিগণকে স্মরণ করিও।” (পড়ুন, ইব্রীয় ১৩:৩.) পৌল যখন এই কথা লিখেছিলেন, তখন তিনি সেই ভাইদের কথা বলছিলেন, যারা তাদের বিশ্বাসের কারণে কারাগারে ছিল। পৌল সেই মণ্ডলীর প্রশংসা করেছিলেন কারণ তারা “বন্দিগণের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ” করেছিল। (ইব্রীয় ১০:৩৪) পৌল যখন চার বছর ধরে কারাগারে বন্দি ছিলেন, তখন ভাই-বোনদের মধ্যে কেউ কেউ তাকে সাহায্য করেছিল। তবে অন্য ভাই-বোনেরা অনেক দূরে থাকত। তা হলে, কীভাবে তারা পৌলকে সাহায্য করতে পেরেছিল? তারা তার জন্য আন্তরিকভাবে প্রার্থনা করতে পেরেছিল।—ফিলি. ১:১২-১৪; ইব্রীয় ১৩:১৮, ১৯.

১৪ বর্তমানে অনেক সাক্ষি তাদের বিশ্বাসের কারণে কারাগারে রয়েছে। যে-ভাই-বোনেরা তাদের কাছাকাছি বাস করে, তারা তাদেরকে ব্যাবহারিক সাহায্য প্রদান করতে পারে। তবে, আমাদের মধ্যে অনেকেই কারাবন্দি ভাই-বোনদের কাছ থেকে দূরে বাস করছে। আমরা কীভাবে তাদের সাহায্য করতে ও স্মরণে রাখতে পারি? ভ্রাতৃপ্রেম আমাদেরকে তাদের জন্য আন্তরিকভাবে প্রার্থনা করতে অনুপ্রাণিত করবে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, আমরা এরিট্রিয়ার কারাগারে থাকা আমাদের ভাই, বোন ও ছোটো ছেলে-মেয়েদের জন্য প্রার্থনা করতে পারি, যাদের মধ্যে রয়েছেন পাউলোস ইয়াসু, আইজাক মোগোস ও নেগেদে তেকলেমারিয়াম। এই ভাইয়েরা ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে কারাগারে বন্দি আছেন।

১৫. কীভাবে আমরা আমাদের বিয়ের প্রতি সম্মান দেখাতে পারি?

১৫ ‘সকলের মধ্যে বিবাহ আদরণীয় হউক।’ (পড়ুন, ইব্রীয় ১৩:৪.) আমরা নৈতিকভাবে শুদ্ধ থাকার মাধ্যমেও ভ্রাতৃপ্রেম দেখাতে পারি। (১ তীম. ৫:১, ২) উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, আমরা যদি কোনো ভাই অথবা বোনের সঙ্গে যৌন অনৈতিকতায় রত হই, তা হলে আমরা সেই ব্যক্তি ও তার পরিবারের ক্ষতি করব। আর আমাদের ভাই-বোনদের মধ্যে যে-আস্থা রয়েছে, তা নষ্ট হবে। (১ থিষল. ৪:৩-৮) একজন স্ত্রী যখন জানতে পারবেন, তার স্বামী পর্নোগ্রাফি দেখেন, তখন তার কেমন লাগবে, সেটাও একটু চিন্তা করুন। তিনি কি এইরকম মনে করবেন, তার স্বামী তাকে ভালোবাসেন ও বৈবাহিক ব্যবস্থার প্রতি সম্মান দেখান?—মথি ৫:২৮.

১৬. সন্তুষ্ট থাকার মনোভাব কীভাবে আমাদের ভ্রাতৃপ্রেম দেখাতে সাহায্য করে?

১৬ “তোমাদের যাহা আছে, তাহাতে সন্তুষ্ট থাক।” (পড়ুন, ইব্রীয় ১৩:৫.) যিহোবার প্রতি আস্থা আমাদেরকে সন্তুষ্ট হতে অর্থাৎ আমাদের যা আছে তা নিয়েই পরিতৃপ্ত থাকতে সাহায্য করবে। এটা কীভাবে আমাদের ভ্রাতৃপ্রেম দেখানোর ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে? আমরা যখন সন্তুষ্ট থাকব, তখন আমরা এই বিষয়টা মনে রাখব, টাকাপয়সা অথবা জিনিসপত্রের চেয়ে আমাদের ভাই-বোন হল আরও গুরুত্বপূর্ণ। (১ তীম. ৬:৬-৮) আমরা তখন আমাদের ভাই-বোনদের সম্বন্ধে অথবা আমাদের জীবনের পরিস্থিতি নিয়ে অভিযোগ করব না। আর আমরা অন্যদের প্রতি ঈর্ষান্বিত হব না কিংবা লোভ করব না। এর পরিবর্তে, আমরা যখন সন্তুষ্ট থাকি, তখন আমরা উদারতা দেখাই।—১ তীম. ৬:১৭-১৯.

১৭. ‘সাহসী’ হওয়া কীভাবে আমাদের ভ্রাতৃপ্রেম দেখাতে সাহায্য করে?

১৭ ‘সাহসী’ হোন। (পড়ুন, ইব্রীয় ১৩:৬.) যিহোবার প্রতি আস্থা আমাদেরকে কঠিন পরীক্ষা সহ্য করার জন্য সাহস প্রদান করে। এই সাহস আমাদের এক ইতিবাচক মনোভাব বজায় রাখতে সাহায্য করে। আর আমরা যখন ইতিবাচক হই, তখন আমরা আমাদের  ভাই-বোনদের উৎসাহিত করার ও তাদের সান্ত্বনা প্রদান করার মাধ্যমে ভ্রাতৃপ্রেম দেখাই। (১ থিষল. ৫:১৪, ১৫) এমনকী মহাক্লেশের সময়েও, আমাদের মুক্তি যে সন্নিকট, তা জেনে আমরা সাহসী হতে পারব।—লূক ২১:২৫-২৮.

প্রাচীনরা আমাদের জন্য যা করেন, সেটার প্রতি আপনি কি উপলব্ধি দেখান? (১৮ অনুচ্ছেদ দেখুন)

১৮. প্রাচীনদের প্রতি আমাদের ভ্রাতৃপ্রেমকে আমরা কীভাবে শক্তিশালী করতে পারি?

১৮ “তোমাদের . . . নেতাদিগকে স্মরণ কর।” (পড়ুন, ইব্রীয় ১৩:৭, ১৭.) আমাদের মণ্ডলীর প্রাচীনরা আমাদের জন্য তাদের ব্যক্তিগত সময় ব্যবহার করে কঠোর পরিশ্রম করেন। তারা যা করেন, সেই সমস্ত কিছু নিয়ে আমরা যখন চিন্তা করি, তখন তাদের প্রতি আমাদের প্রেম ও উপলব্ধি বৃদ্ধি পায়। তাই, আমাদের কোনো কাজের কারণে তারা তাদের আনন্দ হারিয়ে ফেলুক অথবা হতাশ হয়ে পড়ুক, তা আমরা কখনো চাইব না। এর পরিবর্তে, আমরা স্বেচ্ছায় তাদের বাধ্য হতে চাইব। এভাবে আমরা “তাঁহাদের কর্ম্ম প্রযুক্ত তাঁহাদিগকে প্রেমে অতিশয় সমাদর” করি।—১ থিষল. ৫:১৩.

আরও পূর্ণরূপে তা দেখিয়ে চলুন

১৯, ২০. কীভাবে আমরা আরও বেশি ভ্রাতৃপ্রেম দেখিয়ে চলতে পারি?

১৯ যিহোবার লোকেরা তাদের ভ্রাতৃপ্রেমের জন্য পরিচিত। পৌলের দিন সম্বন্ধেও একই বিষয় বলা যায়। কিন্তু, পৌল ভাই-বোনদের আরও বেশি প্রেম দেখানোর জন্য উৎসাহিত করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন: “আরও অধিক উপচিয়া পড়।” (১ থিষল. ৪:৯-১১) স্পষ্টতই, উন্নতি করার সুযোগ সবসময়ই খোলা রয়েছে!

২০ তাই, এই বছর আমরা যখন কিংডম হলে টাঙানো আমাদের বার্ষিক শাস্ত্রপদ দেখব, তখন আমরা যেন এই প্রশ্নগুলো নিয়ে ধ্যান করি: আমি কি আরও বেশি অতিথিসেবক হতে পারি? কীভাবে আমি কারাগারে থাকা আমাদের ভাই-বোনদের সাহায্য করতে পারি? বিয়ে সম্বন্ধে ঈশ্বরের ব্যবস্থার প্রতি আমি কি সম্মান দেখাই? কোন বিষয়টা আমাকে প্রকৃতই সন্তুষ্ট থাকতে সাহায্য করবে? কীভাবে আমি যিহোবার প্রতি আরও আস্থা দেখাতে পারি? যারা নেতৃত্ব নিচ্ছেন, তাদের প্রতি আমি কীভাবে আরও বাধ্য হতে পারি? আমরা যদি এই ছয়টা ক্ষেত্রে উন্নতি করি, তা হলে বার্ষিক শাস্ত্রপদ কেবল দেওয়ালে টাঙানো একটা সাইনবোর্ড হবে না; এটা আমাদেরকে পৌলের এই কথার বাধ্য হওয়ার বিষয়েও মনে করিয়ে দেবে: “ভ্রাতৃপ্রেম স্থির থাকুক।”—ইব্রীয় ১৩:১.

^ [১] (৯ অনুচ্ছেদ) যিহোবার সাক্ষিরা প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময়ে কীভাবে ভ্রাতৃপ্রেম দেখিয়ে থাকে, সেটার উদাহরণ হিসেবে ২০০২ সালের ১৫ জুলাই প্রহরীদুর্গ পত্রিকার ৮-৯ পৃষ্ঠা এবং যিহোবার সাক্ষিরা—ঈশ্বরের রাজ্যের ঘোষণাকারী (ইংরেজি) বইয়ের ১৯ অধ্যায় দেখুন।